• শনিবার   ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৩ ১৪২৮

  • || ০৯ সফর ১৪৪৩

সর্বশেষ:
দোয়ারাবাজারে বিভিন্ন কর্মসূচি পরিদর্শনে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার অবশেষে শুরু হচ্ছে সিলেটের সেই দুই সড়কের সংস্কারকাজ করোনা: ফের মৃত্যুর মিছিলে সিলেটে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের প্রথম সভাপতি ফয়জুল আর নেই

আজমিরীগঞ্জে উপজেলা ভূমি অফিসে অতিরিক্ত কর আদায়ের অভিযোগ

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২২ আগস্ট ২০২১  

হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে উপজেলা ভূমি অফিসের প্রধান সহকারী কর্মকর্তা ইব্রাহীমের মিয়ার বিরুদ্ধে ভূমি কর আদায়ে অতিরিক্ত টাকা নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। আজমিরীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিসে এসে সেবা নিতে অতিরিক্ত টাকা নেয়ার এ অভিযোগ নতুন নয়, টাকা না দিলে ভুমি অফিসে মিলে না সেবা।

বুধবার (১৮ আগস্ট) দুপুরে উপজেলা ভুমি অফিসে কর দিতে গিয়ে এমন হয়রানীর শিকার হন পৌরসভার জনৈক ব্যক্তি। ভূমি উন্নয়ন কর আদায়ের রসিদ প্রতি ৩শত টাকা থেকে শুরু করে প্রকারভেদে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত বেশি নিলেও রশিদে তা উল্লেখ করেন না ওই কর্মকর্তা। এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে হয়রানির শিকার হতে হয় বলেও জানান অনেক ভোক্তভোগী।

জানা যায়, গত বুববার দুপুরে আজমিরীগঞ্জ পৌরসভার ভোক্তভোগী ইব্রাহিম মিয়ার বিরুদ্ধে অতিরিক্ত টাকা নেয়ার অভিযোগ করেন। এছাড়াও উপজেলার অনেক ইউনিয়ন ভূমি অফিসে বিভিন্ন কাজের জন্য জনসাধারণকে অযাচিত হয়রানির করা এবং অতিরিক্ত অর্থ আদায় করার অভিযোগ রয়েছে। ভুমি সংক্রান্ত বিষয়ে উপজেলা কিংবা ইউনিয়ন ভুমি অফিস গুলোতে সেবা নিতে গেলে সেবাগ্রহীতাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করার অভিযোগও রয়েছে সংশ্লিষ্ট অফিসে কর্মরত অনেকের বিরুদ্ধে। এসব বিষয়ে অভিযোগ করলে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয় সেবাগ্রহীতাদের। বিভিন্ন রকমের হয়রানীর ফলে অনেকেই বাধ্য হয়ে অতিরিক্ত টাকা পরিশোধ করেন বলেও জানা গেছে।

এবিষয়ে ভোক্তভোগী বলেন, ওই দিন দুপুর ১২ টায় আমি নিজ নামীয় জমির কর পরিশোধ করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিসে যাই। সেখানে যাওয়ার পর আমি যখন আমার ভূমির কর কত জানতে চাই তখন ইব্রাহিম মিয়া আমাকে বলে ১১ হাজার ৯০০ টাকা। আমি টাকা পরিশোধ করার পর রশিদ চাইলে আমাকে ইব্রাহীম রশিদ দেয়। রশিদে আমার ভূমির কর ৯৫০০ উল্লেখ করা হয়। তখন আমি সাথে সাথে প্রশ্ন করি আমি টাকা দিলাম ১১ হাজার ৯০০ তাহলে রশিদ ৯ হাজার ৫০০ কেন ? তখন ইব্রাহিম মিয়া বলেন, এটাই নিয়ম, কাজ করতে হলে বড় স্যারদেরকে টাকা দিতে হয় তাই অতিরিক্ত টাকা নিয়েছি।

এই বিষয়ে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিসের প্রধান সহকারী ইব্রাহিম মিয়ার কাছে রশিদের বাইরে অতিরিক্ত টাকা কেন নেওয়া হয় জানতে চাইলে ইব্রাহিম মিয়া বিষয়টি অস্বীকার করেন। এরপর টাকা নেওয়ার ভিডিও ক্লিপটি ভোক্তভোগী এবং সংবাদকর্মীদের কাছে সংরক্ষিত আছে বললে, ভূমি অফিসে অবস্থানরত হিমেল চৌধুরী নামে এক দালাল বিষয়টি টাকার বিনিময়ে মীমাংসা করার চেষ্টা করেন। যার ভিডিও ক্লিপ সংবাদকর্মীদের নিকট সংরক্ষিত রয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শফিকুল ইসলাম জানান, আমি বিষয়টি দেখতেছি। এই ব্যাপারে কেউ যদি লিখিত অভিযোগ দেয় তাহলে আমি অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুলতানা সালেহা সুমি জানান, রশিদের বাইরে টাকা নেওয়ার কোন সুযোগ নেই।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার