• মঙ্গলবার   ০৯ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৫ ১৪২৯

  • || ১০ মুহররম ১৪৪৪

সর্বশেষ:
সাকিবকে নোটিশ পাঠাল বিসিবি সিলেটের শ্রেষ্ঠ এএসআই মোহাম্মদ অলিউল হাসান এলজিইডি প্রকৌশলীর উপর সন্ত্রাসী হামলা, থানায় মামলা সিলেটের সৈয়দা জেবুন্নেছা হক পেলেন "বঙ্গমাতা" পদক সুনামগঞ্জে কৃষক হত্যায় একজনের আমৃত্যু, ৫ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড  ওসমানীতে হামলা: আ.লীগ নেতার ভাতিজার আত্মসমর্পণ অবৈধভাবে ইতালি যাওয়ার পথে সুনামগঞ্জের যুবকের মর্মান্তিক মৃত্যু
১৩৬

তামাবিল বন্দর দিয়ে পাথর আমদানি বন্ধ

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ১০ জানুয়ারি ২০২২  

সিলেটের তামাবিল স্থল বন্দর দিয়ে গত তিনদিন ধরে পাথর আমদানি বন্ধ রয়েছে। অটো এসএমএস পদ্ধতিতে পাথর আমদানির সরকারি সিদ্ধান্তের পর ব্যবসায়ীরা আমদানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নেন। এতে প্রতিদিন অর্ধকোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার।

রোববার (৯ জানুয়ারি) তামাবিল স্থলবন্দরের উপপরিচালক মো. মাহফুজুল ইসলাম ভূঁইয়া এ তথ্য জানান।

মাহফুজুল ইসলাম জানান, তামাবিল স্থল বন্দরে গত ৭ জানুয়ারি থেকে অটো এসএমএস সফটওয়্যার পদ্ধতি চালু হয়েছে। এতে ডিজিটালাইজড পদ্ধতিতে ওজন মাপা সম্ভব হবে। এতদিন শুধু ওজন মাপার ম্যানুয়াল স্কেল চালু ছিল। ডিজিটালাইজড ওজন মাপার যন্ত্র চালু হওয়ার পর থেকেই এ বন্দর দিয়ে পাথর আমদানি বন্ধ করে দিয়েছে আমদানিকারকরা।

পাথর আমদানিকারকদের অভিযোগ, ভারতের ব্যবসায়ীরা পাথর রপ্তানি করে থাকেন ফিতা দিয়ে মেপে। ফিতা দিয়ে মাপা বোল্ডার পাথরের সঙ্গে থাকা পানি ও মাটি ওজনে হেরফের হয়। ফলে ভারত থেকে ম্যানুয়াল পদ্ধতির কাগজ নিয়ে এসে বাংলাদেশ বন্দরে বেকায়দায় পড়তে হবে আমদানিকারকদের। সব তথ্য নতুন করে দেওয়ার সঙ্গে ওজনের তারতম্যের জন্য গুণতে হবে জরিমানা। ওজনে কম হলেও দিতে হবে নির্ধারিত ওজনের টাকা।

সিলেট চেম্বারের পরিচালক হাজী সরোয়ার হোসেন ছেদু বলেন, একপাশ থেকে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে এনে অন্য পাশে ডিজিটাল পদ্ধতিতে মাপ কখনও সমান হবে না। এছাড়া, প্রতিদিন ১ থেকে ২০০ গাড়ি বন্দরে প্রবেশ করতে পারবে কিনা সন্দেহ আছে। এভাবে লোকসান করে ব্যবসা করা সম্ভব নয়। তাই কোনো সমাধান না দেখে আমরা পাথর আমদানি বন্ধ করে দিয়েছি।

তামাবিল কয়লা-পাথর আমদানীকারক গ্রুপের সভাপতি মো. লিয়াকত আলী বলেন, স্থল বন্দর ডিজিটালাইজেশনে আমাদের কোনো সমস্যা নেই। তবে, পাথর আমদানি পদ্ধতি ভিন্ন বিষয়। এখানে দুই দেশের ব্যবসা চলছে। তাই এক দেশে ডিজিটাল পদ্ধতি এবং অন্য দেশে ম্যানুয়াল পদ্ধতি হলে পাথর আমদানিতে সমস্যা হবে। আমরা বড় ধরনের লোকসানের সম্মুখীন হবো। তাই স্থল বন্দরের দুই দিকে একই পদ্ধতিতে অটোমেশিন চালু হলে সমস্যা নেই। ব্যবসায় আমাদের লস হবেনা। এর জন্য ভারত অংশের স্থল বন্দর নির্মাণ এবং অটোমেশিন পদ্ধতি চালুর আগ পর্যন্ত আমাদের দেশের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষর উচিত হবে এই দিকটা বিবেচনা করা।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার