• শনিবার   ২৩ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৮ ১৪২৮

  • || ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
সিলেটের আওয়ামী লীগ নেতা শমসের বক্স মারা গেছেন সহকারী শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে বড়লেখায় সম্প্রীতি সভা চার মাসেও হাকালুকিতে বৃক্ষ নিধন তদন্তের অগ্রগতি নেই দক্ষিণ সুরমার কলেজছাত্র রাহাত হত্যার ঘটনায় মামলা ‘আঁধার কেটে আলো আসবেই’ স্লােগানে সিলেটে মোমবা‌তি প্রজ্জ্বলন সিলেটের ‘শেখ হাসিনা শিশু পার্ক’ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন চিকিৎসার জন্য বাংলাদেশিদের আর বিদেশ যেতে হবে না: সিলেটে মোমেন

যার চুলে যত গোবর, সে তত বেশি সুন্দরী!

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১  

প্রতিটি মানুষের জন্য সৌন্দর্যের মানে ভিন্ন রকম হয়ে থাকে। এমন এক উপজাতির মানুষ রয়েছে যারা নিজেদের চুলে গোবর মেখে নিজেদেরকে সবচেয়ে সুন্দর অর্থাৎ মিস ইউনিভার্সের সমতুল্য মনে করে। অবিশ্বাস্য মনে হলেও এটি সত্যি। 

আর এই উপজাতির নাম হলো ময়িলা। এই উপজাতির নারীরা তাদের চুল অক্টোপাসের মতো করে রাখে। এটি আসলে জীবন্ত অক্টোপাস না। এগুলো মূলত গরুর গোবর। হ্যাঁ, আপনি ঠিকই শুনছেন।

এই উপজাতিদের বেশিরভাগের প্রধান পেশা হলো কৃষিকাজ করা। তারা ভুট্টাসহ অন্যান্য প্রধান প্রধান ফসল চাষ করে। তাছাড়া অন্যরা গবাদি পশু যেমন- ছাগল পালন করে। অনেকেই আবার পাখি পালনে ব্যস্ত থাকেন।

ময়িলা উপজাতি

ময়িলা উপজাতি

জানা যায়, প্রথম দিকের বান্টসের একটি অংশ তাদের বর্তমান বাড়িতে বসতি স্থাপনের জন্য আসতেন। এক পর্যায়ে ময়িলা একটি শক্তিশালী দল যুদ্ধে লিপ্ত হয়। তখন বৃহত্তর নৃগোষ্ঠীর মধ্যে আগ্রাসন বা খরার সৃষ্টি হয়। আর এ কারণেই অন্যান্য বান্টু অ্যাঙ্গোলা নামিবিয়ায় পালিয়ে যায়। তবে ময়িলার জনগণ এবং তাদের মাতৃ নৃগোষ্ঠী নায়েনেকা-হাম্বো অ্যাঙ্গোলাতেই রয়ে যায়।

ময়িলাসদের সবচেয়ে আকর্ষণীয় সংস্কৃতি হচ্ছে, গোবর দিয়ে নারীদের চুল ঢেকে রাখা। নারীদের এই চুলের ধরণ ময়িলা মানুষের কাছে অনেক বেশি মূল্যবান। যার চুলে যত বেশি গোবর থাকে সে যেন তত বেশি সুন্দর। মূলত তাদের চুলে থাকে কিছু প্লেট। চুলে থাকা এই প্লেটগুলোকে নন্টোম্বি বলা হয়। ড্রেডলকস লুকিং চুলের ধরণগুলো কেবল নান্দনিকতার জন্য থাকে না। নারীদের মাথায় নন্টোম্বির সংখ্যাটির একটি নির্দিষ্ট অর্থ রয়েছে। নারী বা মেয়েদের সাধারণত চার বা ছয়টি নন্টোম্বি থাকে। যদি কারো মাথায় তিনটি নন্টোম্বি দেখেন, এর অর্থ হচ্ছে তার পরিবারের কেউ মারা গেছে।

ময়িলাসদের সবচেয়ে আকর্ষণীয় সংস্কৃতি হচ্ছে, গোবর দিয়ে নারীদের চুল ঢেকে রাখা

ময়িলাসদের সবচেয়ে আকর্ষণীয় সংস্কৃতি হচ্ছে, গোবর দিয়ে নারীদের চুল ঢেকে রাখা

নন্টোম্বি অর্জনের জন্য, নারীরা কাঁচা লাল পাথর থেকে প্রাপ্ত অঙ্কুলা নামের একটি লাল পেস্ট বানায়। এরপরে তারা শুকনা গোবর, ভেষজ, গাছের ছালের গুঁড়া এবং তেল সেই লাল পেস্টের সঙ্গে মিশ্রিত করে। এভাবেই তৈরি হয় নন্টোম্বি। শেষে মিশ্রণটি তাদের চুলে লাগায়। অবশেষে চুলগুলোতে শুকনা খাবার, পুঁতির মালা এবং আসল বা প্লাস্টিকের অলংকার দিয়ে সাজানো হয়।

ময়িলা সংস্কৃতিকে চিত্রিত করার আরেকটি উপায় হচ্ছে, নারীদের বিস্তৃত গহনা পরিধান করা। তাছাড়া এই নারীরা গলায় কাদা এবং পুঁতির মালা দিয়ে তৈরি ঘন কলার পরার জন্যও পরিচিত। ময়িলা নারীরা অন্যরকম ভাবে পোশাক পরে এবং নিজেদের সজ্জিত করে। প্রতিটি নারী বা মেয়েকে জীবনের প্রতিটি সময়ের পরিবর্তনের উপর ভিত্তি করেই সেই ধরনের নেকলেস পরিধান করতে হয়। আর কিসের উপর ভিত্তি করে পরিবর্তন নির্ধারণ করা হয়, তাও উল্লেখ রয়েছে।

তাছাড়া এই নারীরা গলায় কাদা এবং পুঁতির মালা দিয়ে তৈরি ঘন কলার পরার জন্যও পরিচিত

তাছাড়া এই নারীরা গলায় কাদা এবং পুঁতির মালা দিয়ে তৈরি ঘন কলার পরার জন্যও পরিচিত

অল্প বয়সী মেয়েরা লাল ভারী নেকলেস পরে। যা পুঁতি দিয়ে তৈরি। আর তাতে মাটি ও ক্ষীর মিশ্রিত লেপ দেয়া থাকে। মেয়েটির জীবনের পরবর্তী পর্যায়ে, উইকারের আচ্ছাদিত প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে তৈরি ভিকেকা নামক একটি হলুদ রঙের নেকলেস পরে। মেয়েরা তাদের বিয়ের আগ পর্যন্ত ভাইক্কা পরেন যা চার বছর পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। একবার তাদের বিয়ে হয়ে গেলে তারা ভিল্যান্ডা নামে সজ্জিত নেকলেসগুলোর একটি সেট পরে। 

বিয়ের পরে ময়িলা নারীরা কখনো তাদের গলার মালা খুলে ফেলেন না। এই মালা পরেই তাদের ঘুমাতে হয়। আর হেড্রেসগুলো তাদের চুলের স্টাইল সুরক্ষিত রাখতে ব্যবহৃত হয়। সাম্প্রতিক সময়ে, অনেক ময়িলারা  তাদের পোশাকটি পশ্চিমীকরণের চেষ্টা করছে। কারণ তারা যখন তাদের এলাকার বাইরের প্রধান বাজারগুলোতে যায়, তখন অন্যরা তাদের নিয়ে মজা করে।

অল্প বয়সী মেয়েরা ভারী নেকলেস পরে

অল্প বয়সী মেয়েরা ভারী নেকলেস পরে

তাদের সংস্কৃতি সম্পর্কে আরেকটি মজার বিষয় হলো, তারা প্রকাশ্যে অন্যের নাম উল্লেখ করে না। তাদের একটি উপজাতি প্রধান থাকে। যারা উপজাতিদের প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করে। তারাই সবাইকে পরিচালিত করে। হেডম্যানের অধীনে একদল প্রবীণ থাকে যারা সরাসরি তাদের কাজগুলো সম্পাদন করে। তাদের কারোর মধ্যে বিরোধ দেখা দিলে প্রবীণরা এবং প্রধান ব্যক্তিরা সেই সমস্যার সমাধান করে।

ময়িলা সনাতনবাদী এবং তারা পরমাত্মায় বিশ্বাসী। তারা আত্মার ওপর বিশ্বাস করে। কারণ তাদের বিশ্বাস যে, পূর্বপুরুষদের আত্মারা তাদের ভালোর জন্য কাজ করে অথবা তাদের বিরুদ্ধে কাজ করে। সবশেষে বলা চলে, প্রতিটি জাতিরই নিজ নিজ সংস্কৃতি রয়েছে। রয়েছে নিজস্ব কিছু বিশ্বাস। সবক্ষেত্রেই যে তা গ্রহণযোগ্য হবে তা নয়। তবে সবার প্রতি শ্রদ্ধা বা সন্মান রাখাটাই প্রকৃত মনুষ্যত্ব।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার