• শনিবার   ২৩ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৮ ১৪২৮

  • || ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
সিলেটের আওয়ামী লীগ নেতা শমসের বক্স মারা গেছেন সহকারী শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে বড়লেখায় সম্প্রীতি সভা চার মাসেও হাকালুকিতে বৃক্ষ নিধন তদন্তের অগ্রগতি নেই দক্ষিণ সুরমার কলেজছাত্র রাহাত হত্যার ঘটনায় মামলা ‘আঁধার কেটে আলো আসবেই’ স্লােগানে সিলেটে মোমবা‌তি প্রজ্জ্বলন সিলেটের ‘শেখ হাসিনা শিশু পার্ক’ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন চিকিৎসার জন্য বাংলাদেশিদের আর বিদেশ যেতে হবে না: সিলেটে মোমেন

আফগান সংকট সমাধানে জাতিসংঘও অপারগ

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১  

আফগানিস্তান সমস্যা জাতিসংঘ একাই সমাধান করতে পারবে বলে মনে করা একটি উদ্ভট কল্পনা। এমনটাই মন্তব্য করেছেন সংস্থাটির মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। তিনি মনে করেন, আফগানিস্তানে একটি অংশগ্রহণমূলক সরকার প্রতিষ্ঠায় মধ্যস্থতা করার সুযোগও সীমিত। তবু আফগান জনগণের জন্য তিনি তালেবানদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আফগানিস্তানে পশ্চিমা সমর্থিত সরকারকে উচ্ছেদ করে তালেবানের ক্ষমতা দখলের এক মাস পূর্ণ হওয়ার প্রেক্ষিতে রয়টার্সকে এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন গুতেরেস।

তালেবানকে স্বীকৃতি না দিতে সাবেক আফগান কূটনীতিকদের আহ্বান : তালেবান সরকাকে স্বীকৃতি না দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বিদেশে ক্ষমতাচ্যুত আফগান সরকারের সাবেক কূটনীতিকরা। চলতি সপ্তাহে বিশ্বনেতাদের উদ্দেশে এক যৌথ বিবৃতিতে কূটনীতিকরা

বলেছেন, ‘তালেবান স্বীকৃতি দেওয়া মানে আফগান জনগণকে একটি সন্ত্রাসীগোষ্ঠীর দয়ার ওপর ছেড়ে দেওয়া।’ আফগান সরকারের প্রতিনিধিত্ব না করলেও এসব কূটনীতিকরা যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, ফ্রান্স, তুরস্কসহ ও অন্যান্য দেশে তাদের মিশন অব্যাহত রেখেছেন। রয়টার্স।

যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ আফগানিস্তান। তালেবান ক্ষমতার এক মাসেই তল্পিতল্পা শূন্য হয়ে পড়েছে বহু আফগান। সরকারি কর্মচারীরা বেতন তারও আগে থেকে। প্রায় দু-তিন মাস। নগদ টাকার অভাবে ঠিকমতো বাজার সদাই হচ্ছে না অনেক সংসারে। খদ্দেরের অভাবে তীর্থের কাকের মতো হাতগুটিয়ে বসে আছেন দোকানি। ব্যাংক কিংবা বুথে নগদ টাকার জন্য এখনো সেখানে দিতে হচ্ছে দীর্ঘ লাইন। তালেবানরা ক্ষমতা দখলের পর দেখা দিয়েছে নতুন সমস্যা। শরিয়া আইনের চাপে চাকরি ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছেন বহু নারী-যাদের আয়ের ওপরই চলত অনেক সংসার। বেকারত্ব আর অর্থকষ্ট নিয়ে এই শ্রেণির মানুষগুলোর গন্তব্য কতদূর? সরেজমিন ঘুরে আতঙ্কিত এসব মানুষের সঙ্গে কথা বলে এ প্রতিবেদন তৈরি করেছে এএফপি।

করোনা পরিস্থিতির কারণে স্বামী বেকার হয়ে যাওয়ায় কাবুলের কেন্দ্রীয় হাসপাতালের একজন নার্স হিসাবে চাকরি নিয়েছিলেন লতিফা আলিজাদা। স্বামী ও তিন ছেলের ভরণপোষণের দায়িত্ব কাঁধে নিয়েছিলেন বাধ্য হয়েই। কিন্তু তালেবানরা ক্ষমতায় আসার পর এখন তিনিও বেকার। অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দুশ্চিন্তায় কোটরে প্রবেশ করেছে তার দুচোখ। একই অবস্থা হয়েছে ২৭ বছর বয়সি মহিলা জামহুরিয়াতের। তিনিও হাসপাতালের চাকরি ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। তালেবানরা সাফ জানিয়ে দিয়েছে, তাদেরকে বেতন দেওয়া হবে না। শুধু তাই নয়, চাকরি করার ক্ষেত্রে মুখঢাকা বোরখা পরা এবং পুরুষ কর্মীদের কাছ থেকে আলাদা হওয়ার শর্ত জুড়ে দিয়েছে তালেবান। তিনি বলেন, ‘বেতন না দিলে ওই চাকরিতে থেকে আমার লাভ কী?’ এ সময় কোনোমতে অশ্রুসংবরণ করা মায়ের দিকে ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে ছিল হাত ধরে থাকা তার দুই ছেলে। জামহুরিয়াত বলছিলেন, ‘আমি যদি সেখানে যাই, তারা বলে-এ ধরনের পোশাক নিয়ে কাজে আসবেন না। আর মহিলাদের সঙ্গে কাজ করুন। এটা অসম্ভব। আপনারাই বলুন, চিকিৎসা কর্মীদের কাছে পুরুষ-মহিলা কোনো ভেদাভেদ হয়?’ আলিজাদা আর জামহুরিয়াতের মতো বহু আফগান মহিলা এখন এ ধরনের সংকটে পড়ে ভবিষ্যৎ নিয়ে ভীষণ উদ্বিগ্ন। কিছু সেক্টরে কাজের সুযোগ থাকলেও সেসব জায়গায় বেতন কমিয়ে দিচ্ছে তালেবানরা। নিরাপত্তার কারণে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সাবেক কাস্টমস কর্মকর্তা এএফপিকে বলেন, তিনি সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে পাকিস্তানের সঙ্গে স্পিন বোল্ডাক সীমান্তে কাজ করেছেন। আগের সরকারের অধীনে তিনি প্রতি মাসে প্রায় ২৪০ ডলার উপার্জন করছিলেন। কিন্তু তালেবান সাফ জানিয়ে দিয়েছে তারা তাকে মাত্র ১১০ ডলার দেবে। তারা বলেছে, ‘এ অবস্থায় যদি আপনার চাকরি চালিয়ে যেতে চান বা ছেড়ে দিতে চান, তবে এটি আপনার

ব্যাপার।’ ওই কর্মকর্তা জানান, কর্মস্থলে দীর্ঘ যাতায়াতেই তালেবানদের প্রস্তাবিত বেতনের অধিকাংশ শেষ হয়ে যাবে। তাহলে আর ওই চাকরি করে লাভ কী। অগত্যা ওই চাকরি ছাড়তে বাধ্য হন তিনি।

অন্যদিকে বাজারে খাবারের দাম বেড়ে গেছে, জ্বালানির দাম বেড়েছে। অথচ অর্থ উপার্জনের সুযোগ নেই বললেই চলে। এ অবস্থায় জাতিসংঘ চলতি সপ্তাহে সতর্ক করে বলেছে, ‘খাদ্য ঘাটতি, উচ্চ মুদ্রাস্ফীতি এবং মুদ্রার পতনের আশঙ্কা রয়েছে। ফলে সারা দেশে মানবিক জরুরি অবস্থা আরও তীব্র হবে।’

এদিকে, অনেক সরকারি পরিষেবা আর কাজ করছে না, দেশটির পক্ষে আন্তর্জাতিকভাবে সাহায্যের পথও অবরুদ্ধ। বুধবার রাজধানীতে কাবুল ব্যাংকের একটি শাখার বাইরে দুপুরের রোদে প্রায় দেড়শ মানুষের দীর্ঘ সারি টাকার জন্য অপেক্ষমান ছিল। এটিএম বুথের লাইন সামলাতে এক সশস্ত্র নিরাপত্তারক্ষী দাঁড়িয়ে ছিলেন চাবুক হাতে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার