• বুধবার   ৩০ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৯

  • || ০৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
শান্তিগঞ্জে সুপেয় পানি পাবে ১৬০০ পরিবার নিউইয়র্কের পুলিশ অফিসার বড়লেখার তৌফিকের কৃতিত্ব শেষ ষোলোয় টিকে থাকতে রাতে মাঠে নামছে আর্জেন্টিনা জঙ্গি ছিনতাই: আরও এক পুলিশ সদস্য বরখাস্ত সুনামগঞ্জ সীমান্ত থেকে দেড় কোটি টাকার তক্ষক জব্দ ঠান্ডায় হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে বাড়ছে শিশু রোগীর চাপ হবিগঞ্জে ভুলে ভরা প্রশ্নপত্রে বার্ষিক পরীক্ষা!
১৬

নেই লোকবল, নির্মাণের দুই বছরেও চালু হয়নি ছাত্রীনিবাস

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২০ নভেম্বর ২০২২  

নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে আরও দুই বছর আগে। সবধরনের সুযোগ-সুবিধাসম্পন্ন বহুতল ভবন থাকলেও জনবলের চালু করা যায়নি ছাত্রীনিবাস। ফলে চরম বিপাকে পড়েছেন দুর্গম এলাকার শিক্ষার্থীরা। পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির অন্যতম উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজ ছাত্রীনিবাসের চিত্র এটি।

দুর্গম এলাকার শিক্ষার্থীদের জন্য খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজে প্রায় পাঁচ কোটি টাকা ব্যয়ে সবধরনের সুযোগ-সুবিধাসম্পন্ন বহুতল ভবন নির্মাণ করে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর। ২০২০ সালে ভবনের নির্মাণ কাজ শেষে দুই বছর পেরিয়ে গেলেও ছাত্রীনিবাসে উঠতে পারছেন না দুর্গম জনপদের শিক্ষার্থীরা।


প্রায় সাড়ে ছয় হাজার শিক্ষার্থীর কলেজটিতে জেলার ৯ উপজেলা ছাড়াও পাশের জেলা রাঙ্গামাটির লংগদু ও বাঘাইছড়ি থেকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণে ভর্তি হন শিক্ষার্থীরা। দুর্গম এলাকার ছাত্রীদের আবাসিক সুবিধা নিশ্চিত করতে নির্মাণ করা হয় ১০০ আসনবিশিষ্ট ছাত্রীনিবাস।


ভবনের প্রতিটি কক্ষে শয্যা, পড়ার টেবিলসহ আসবাবপত্র রাখা হলেও সেখানে থাকছেন না কোনো শিক্ষার্থী। ব্যবহার না হওয়ার কারণে নষ্ট হচ্ছে ভবনের আসবাবপত্র। অন্যদিকে, ছাত্রীনিবাসটি চালু না হওয়ায় শহরের বিভিন্ন মেসে বাড়তি ভাড়ায় থাকতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। এতে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তাদের পরিবার।

জেলা শহর থেকে ৭০ কিলোমিটার দূরের মটিরাঙ্গার উপজেলার সীমান্তবর্তী তাইন্দং থেকে খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজে পড়তে আসা ইসমত জাহান বলেন, ছাত্রীনিবাসটি নির্মাণ কাজ শেষ হলেও চালু না হওয়ায় আমরা বিপাকে পড়েছি। শহরে বেশি টাকায় ঘর ভাড়া নিয়ে থাকতে হচ্ছে। এতে আমার পরিবারের ওপর বড় ধরনের চাপ পড়ছে।


ছাত্রীনিবাস চালু হলে স্বাচ্ছন্দ্যে পড়াশোনা করতে পারতেন জানিয়ে মুন্নী আক্তার বলেন, হোস্টেল সুবিধা পাবো এমন আশা নিয়ে কলেজে ভর্তি হলেও শহরের ভাড়া মেসে থেকে তাকে পড়াশোনা করতে হচ্ছে।

মিনা ত্রিপুরা নামে পানছড়ি থেকে আসা অপর এক শিক্ষার্থী বলেন, হোস্টেল চালু না হওয়ায় ভাড়া বাসায় থাকতে হচ্ছে। আমি প্রান্তিক জনপদে বেড়ে ওঠা মেয়ে। আমার পরিবারের তেমন সামর্থ্যও নেই। বাসা ভাড়া থাকায় আমাদের আর্থিকভাবে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।


জনবল সংকটে ছাত্রীনিবাসটি চালু করা যাচ্ছে না জানিয়ে খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মিছবাহুদ্দীন আহমদ জানান, নির্মাণ কাজ শেষে ছাত্রীনিবাসটি দুই বছর আগে হস্তান্তর করা হলেও এটি পরিচালনার জন্য যে জনবল প্রয়োজন তা নিয়োগ দেওয়া হয়নি। কলেজের ব্যবস্থাপনায় কর্মচারী নিয়োগ দেওয়ার সামর্থ্য না থাকায় ছাত্রীনিবাসটি চালু করা যাচ্ছে না।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার