• শনিবার   ২৮ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪২৯

  • || ২৫ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
তরমুজ ফ্রিজে রাখবেন না যে কারণে হবিগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ ইউএনও মাধবপুরের মঈনুল পদ্মাসেতু দাঁড়িয়ে যাওয়ায় বিএনপির হিংসা হচ্ছে বড়লেখায় হত্যা চেষ্টা মামলায় প্রধান শিক্ষক কারাগারে বালি উত্তোলন না করার দাবিতে তাহিরপুরে মানববন্ধন বিশ্বনাথে জেলা আ’লীগের পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ করলেন শফিক চৌধুরী
৩৪

তারের জঞ্জালের শহর মৌলভীবাজার 

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২৬ জানুয়ারি ২০২২  

পুরো শহর জুড়ে তারের জঞ্জাল। প্রতিটি বিদ্যুতের খুঁটিতে প্রায় ১২ ধরনের ক্যাবল তার টানার ফলে এ জঞ্জালের সৃষ্টি হয়েছে। সচেতন নাগরিকরা অভিযোগ করে বলেন বিভিন্ন ধরনের ব্যবসার ক্যাবল তার প্রতিটি বিদ্যুৎ এর খুঁটিতে লাগানো হয়েছে অবৈধভাবে। সরকার এ থেকে কোনো রাজস্ব পায় না। যেকোনো সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা, পাশাপাশি সৌন্দর্যহানি হচ্ছে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, বিদ্যুৎ এর খুঁটিতে বিদ্যুৎ লাইন এর পাশাপাশি বেসরকারি ইন্টারনেট লাইন রয়েছে ৯টি। স্যাটেলাইট লাইন একটি। টিএন্ডটি লাইন একটি ও ইন্টারনেট লাইন একটি।

সাম্প্রতিক সময়ে শহরের সেন্ট্রাল রোডের পুরাতন বিদ্যুতের খুঁটি অপসারণ করে বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ। বিদ্যুৎ খুঁটিতে ঝুলানো ইন্টারনেট ও স্যাটেলাইট ক্যাবল তার কিছু সরানো হলেও আবারো ফিরছে সরূপে। বিভিন্ন স্থানে মই ও যন্ত্রপাতি বসিয়ে ক্যাবল তার রক্ষণাবেক্ষণ করা হচ্ছে গত কয়েকদিন ধরে।  ঐসব কোম্পানির লোকজন ছিঁড়ে যাওয়া ক্যাবল তার পুনঃসংযোগের ফলে জনসাধারণের চলাচলে ব্যাঘাত ঘটতে দেখা যায়।

সংশ্লিষ্ট টেকশিয়ানরা জানান, ক্যাবল ছিঁড়ে যাওয়ায় ইন্টারনেটের ৮৫০ ও স্যাটেলাইটের ৩০০ জন গ্রাহকদের সাময়িক সেবা পেতে সমস্যা হচ্ছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, সেন্ট্রাল রোডের বিভিন্ন স্থানে মই ও যন্ত্রপাতি বসিয়ে ক্যাবল তারের রক্ষণাবেক্ষণ করার ফলে, ক্রেতাদের চলাচলে কষ্ট হচ্ছে। সচেতন নাগরিক, সংস্কৃতিকর্মী অজয় সেন বলেন, বিভিন্ন অনিয়ম এখন নিয়ম হয়ে গেছে। অনুমতি ছাড়া  যত্রতত্র এই তার লাগানোর ফলে ঘটতে পারে দুর্ঘটনা। এগুলো দেখার যেন কেউ নেই।

ডিশের ফিড লাইন টেকনিশিয়ান মঈন উদ্দীন বলেন, আমাদের নিজস্ব বা নির্দিষ্ট খুঁটি নেই, তাই বাধ্য হয়ে বিদ্যুৎ এর খুঁটিতে আমাদের ক্যাবল তার স্থাপন করতে হয়। সাম্প্রতিক সময়ে বিদ্যুৎ অফিস খুঁটি পরিবর্তনের সময় আমাদের লাইন খুলে ফেলে দেয়, ফলে আমার প্রায় ৩০০ গ্রাহক ভোগান্তিতে পড়েছেন।

ইন্টার‌নেটের টেকনিশিয়ান মোজাক্কির আহমদ বলেন, বিদ্যুৎ এর খুঁটি আমরা ব্যবহার করি, কারণ বিকল্প কিছু করার সুযোগ আমাদের নেই। যদিও এভাবে ব্যবহার করা ঠিক না, তারপরও আমাদের করতে হচ্ছে।

মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র মো ফজলুর রহমান জানান, বিদ্যুৎ এর প্রতিটি পিলারে অতিরিক্ত তারে জঞ্জালের সৃষ্টি হয়েছে। একসঙ্গে এতগুলো লাইন থাকায় আবর্জনার মতো লাগে, এবং এগুলোয় সমস্যার সৃষ্টিও করছে। যথাযথ কর্তৃপক্ষের উচিত এই তারের জঞ্জাল কমানো।

জেলা বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. সাইফুদ্দিন আহমেদ বলেন, পুরোনো বিদ্যুতের খুঁটি অপসারণের ফলে অনেক ক্যাবল তার সরানো হয়েছে। আমরা শুনেছি নতুন করে আবারো এই তার টানা হচ্ছে,  যা অবৈধ এবং অন্যায়। প্রতিটা বিদ্যুতের খুঁটিতে অবৈধ ও অনুমোদন ছাড়াই ঐ ক্যাবল তারের জটলা সৃষ্টি করা হয়েছে। এভাবে নিয়ম না মেনে তার টানা বিপজ্জনক। বৈদ্যুতিক তারের সঙ্গে অন্য তারের সংস্পর্শের কারণে বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার