ব্রেকিং:
স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে সাংবাদিকদের স্মার্ট হতে আহ্বান শফিক চৌধুরীর পিনাকীসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে সিলেটে মামলা দেশকে এগিয়ে রাখতে শিক্ষার গুরুত্ব অনেক বেশি: সিসিক মেয়র জাতীয় গ্রীডে যুক্ত হলো সিলেটের আরও ১৮ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সংরক্ষিত ৪৮ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে আ.লীগ মনোনীতরা গ্রামীণ উন্নয়নে আওয়ামিলীগ সরকার সবসময় আন্তরিক : ইমরান আহমদ দেশে রিজার্ভ সংকট নেই, উন্নয়ন কার্যক্রম চলমান : গণপূর্তমন্ত্রী প্রতিটি উপজেলায় মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে : পাপন কুলাউড়ায় ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত নারীর মৃত্যু শেখ হাসিনার দর্শন:ভিশন ও নেতৃত্ব,উন্নয়নের চাবিকাঠি’ বই ড. মোমেনের দেশে আন্দোলনের কোনো ইস্যু নেই: কাদের অঙ্গীকার পূরণে এলাকার জন্য ২০ কোটি করে টাকা পাচ্ছেন এমপিরা মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়ে হাসপাতালে মুস্তাফিজ মঙ্গলবার থেকে সিলেটসহ সারাদেশে বৃষ্টির আভাস, ফের বাড়তে পারে শীত! প্রতি সপ্তাহে বুধবার বসবে ভোলাগঞ্জ বর্ডার হাট! সিলেটে গ্যাস ও তেল নিয়ে মিললো আরও সুসংবাদ শেখ হাসিনা ও জেলেনস্কির বৈঠক, কৃতজ্ঞতা জানিয়ে জেলেনস্কির টুইট
  • সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১২ ১৪৩০

  • || ১৪ শা'বান ১৪৪৫

সর্বশেষ:
মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়ে হাসপাতালে মুস্তাফিজ সিলেটে ‘বর্জ্য পৃথকীকরণ প্ল্যান্ট’ উদ্বোধন করলেন এলজিআরডি মন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জেলেনস্কির বৈঠক, কৃতজ্ঞতা জানিয়ে জেলেনস্কির টুইট সিলেটে গ্যাস ও তেল নিয়ে মিললো আরও সুসংবাদ মঙ্গলবার থেকে সিলেটসহ সারাদেশে বৃষ্টির আভাস, ফের বাড়তে পারে শীত! স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে সাংবাদিকদের স্মার্ট হতে আহ্বান শফিক চৌধুরীর দেশকে এগিয়ে রাখতে শিক্ষার গুরুত্ব অনেক বেশি: সিসিক মেয়র অঙ্গীকার পূরণে এলাকার জন্য ২০ কোটি করে টাকা পাচ্ছেন এমপিরা দেশে আন্দোলনের কোনো ইস্যু নেই: কাদের শেখ হাসিনার দর্শন:ভিশন ও নেতৃত্ব,উন্নয়নের চাবিকাঠি’ বই ড. মোমেনের দেশে রিজার্ভ সংকট নেই, উন্নয়ন কার্যক্রম চলমান : গণপূর্তমন্ত্রী পিনাকীসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে সিলেটে মামলা প্রতিটি উপজেলায় মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে : পাপন গ্রামীণ উন্নয়নে আওয়ামিলীগ সরকার সবসময় আন্তরিক : ইমরান আহমদ সংরক্ষিত ৪৮ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে আ.লীগ মনোনীতরা জাতীয় গ্রীডে যুক্ত হলো সিলেটের আরও ১৮ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস
১৩৮০১

নার্সদের উস্কে দিতে গিয়ে ‘টাকলা’ নাজমুল আটক, মুচলেকায় মুক্তি

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০২৪  

সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে ছ্যাচড়া এক ছাত্রনেতা নাজমুল হাসান ওরফে ‘টাকলা নাজমুল’। কলেজের গণ্ডি পেরিয়ে ওসমানী হাসপাতালেও রয়েছে নাজমুলের একচ্ছত্র রাজত্ব। টেন্ডার বাণিজ্য থেকে শুরু করে চাঁদাবাজি, সকল অপকর্মেই জড়িয়ে আছে সিওমেক ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুলের নাম। সর্বশেষ ওসমানী হাসপাতালে ঘুষ লেনদেনকালে গোয়েন্দা সংস্থার অভিযানে দায়িদের বাঁচাতে অন্যদের উস্কানি দিতে গিয়ে ফেঁসে যায় নাজমুল। পরে, মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পায় সে।       

অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১৫ সালে মেডিকেলে ভর্তির প্রশ্নপত্র ফাঁসের মাধ্যমে অপকর্মে হাতেখড়ি হয় নাজমুলের। সে বছর ফাঁস করা প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়ে ওসমানী মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি হন নাজমুল হাসান। এর আগে তিনি ছাত্রশিবিরের রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন বলে জানিয়েছেন তার উচ্চ মাধ্যমিকের সহপাঠীরা। 

বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানী, ডায়গনস্টিক সেন্টার, প্রাইভেট মেডিকেল, চিকিৎসা যন্ত্রাংশ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে চাঁদা আদায়ের অভিযোগও রয়েছে নাজমুলের বিরুদ্ধে।

নাজমুলকে নিয়ে কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে একটি গল্প প্রচলিত আছে যে, একটি ওষুধ কোম্পানীর প্রতিনিধির কাছ থেকে নিয়মিত চাঁদা আদায় করতেন নাজমুল। দিনদিন তার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ হয়ে গোপনে এক ফন্দি আঁটেন ওই ওষুধ কোম্পানীর প্রতিনিধি। তিনি বদলি হয়ে যাওয়ার সময় উপহার হিসেবে একটি শ্যাম্পুর বোতল দেন নাজমুলকে। ওই বোতলে শ্যাম্পুর বদলে বিষাক্ত ক্যামিকেল ছিলো। যা ব্যবহারে নাজমুলের মাথার চুল ঝরতে শুরু করে। বিষয়টি বুঝতে অনেক দেরি হয়ে যায় নাজমুলের। ততদিনে তার মাথার সামনের দিককার চুল হাওয়া। তারপর থেকে ‘টাকলা নাজমুল’ নাম পড়ে যায় তার।

গত কয়েকমাস ধরে ভারতীয় চোরাচালানের সাথে যুক্ত হয়েছেন সিলেট এমএজি ওসমানী ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাজমুল হাসান। সম্প্রতি সিলেটের সীমান্ত এলাকায় ভারতীয় পণ্যের চোরাচালান বৃদ্ধি পাওয়ায় লাভজন এ ব্যবসায় যুক্ত হন এই ছাত্রলীগ নেতা। ভারতীয় পণ্য শাড়ি, কসমেটিকস, খাদ্য সামগ্রী ইত্যাদি চোরাইপথে সীমান্ত এলাকা থেকে সিলেট শহরে এনে ওসমানী মেডিকেলের জিয়া হোস্টেলে মজুদ করেন নাজমুল। পরবর্তীতে কুরিয়ার সার্ভিস এবং বিভিন্ন যানবাহনের মাধ্যমে মালামালগুলো নিজের এলাকায় পাঠিয়ে দ্বিগুণ লাভে বিক্রি করেন।  

আরও পড়ুন >> ওসমানী মেডিকেল কলেজে ত্রাসের নাম ‘টাকলা’ নাজমুল

গত ৯ জানুয়ারি ঘুষের ৬ লাখ টাকাসহ গোয়েন্দাদের হাতে ধরা পড়েন ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নার্স আমিনুল ও সুমন। এ ঘটনায় সামনে আসে নাজমুলের অতি ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত এবং তার সকল অপকর্মের দোসর বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশনের (বিএনএ) ওসমানী মেডিকেল শাখার সাধারণ সম্পাদক ইসরাইল আলী সাদেকের নাম। চুক্তি ছিলো, ঘুষের টাকা থেকে একটি ভালো অঙ্কের অর্থ বকশিশ পাবেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান। কিন্তু দুই নার্স টাকাসহ ধরা পড়ার পরপরই গা ঢাকা দেন সাদেক। 

এদিকে ঘটনার গুরুত্ব বুঝতে না পেরে ওই সময় হাসপাতালের পরিচালকের কক্ষের সামনে নার্সদের জড়ো করে উস্কানিমূলক কথাবার্তা বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আন্দোলন সৃষ্টির চেষ্টা করেন নাজমুল হাসান। এসময় তিনি নার্সদের পরামর্শ দেন পরিচালকের কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দিতে। এ সময় এতে সায় দেন ওসমানী মেডিকেল ক্যাম্পে কর্মরত পুলিশ সদস্য জনিও। ধূর্ত  নাজমুলের কুটবুদ্ধি বুঝতে দেরি হয়নি হাসপাতালের নার্সদের। তারা উল্টো নাজমুলকে আটকে রেখে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে খবর দেন। ফলে বিশৃঙ্খলা তৈরির পায়তারা মাঠে মারা যায় নাজমুলের। পরে অবশ্য হাসপাতালের পরিচালকের কাছে লিখিতভাবে ক্ষমা চেয়ে মুচলেকা দিয়ে মুক্তি পান ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান। মুচলেকার কপি ইতিমধ্যে আমাদের হাতে এসে পৌছেছে। নাজমুলের নিজ হাতে লিখা ওই মুচলেকায় শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করলেও অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে উপরোক্ত তথ্যগুলো।

এ ব্যাপারে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম জানান, 'নাজমুল আমার কাছে এসে পরিচালক স্যারের রুমে তালা মারার প্রস্তাব দেয়। কিন্তু আমি তার এ প্রস্তাবে রাজি হইনি। পরে সে নিজেই মেডিকেলের কিছু ছাত্র ও হাসপাতালের নার্সদের সাথে নিয়ে পরিচালক স্যারের রুমের সামনে গেছে বলে জানতে পেরেছি।' 

বক্তব্যের জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাজমুল হাসানের মোবাইল নাম্বারে একাধিকবার কল দিলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

চলবে... 

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার