• সোমবার   ৩০ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৬ ১৪২৯

  • || ০৭ রজব ১৪৪৪

সর্বশেষ:
শ্রীমঙ্গলে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে অনুদানের চেক বিতরণ বাংলার মানুষের কথা ভেবেই দেশে এসেছি, পালাতে নয়: প্রধানমন্ত্রী মৌলভীবাজারে বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস পালিত সিলেটে ভারতীয় চোরাই চিনিসহ কারবারি গ্রেফতার শাবিপ্রবিতে শূন্য আসন পূরণে ফের ডাকা হবে শিক্ষার্থী হবিগঞ্জে দুদকের মামলায় ৩ কর্মকর্তা-কর্মচারী কারাগারে এই সরকারের আমলে মানুষ বিচার পেয়েছে: স্পিকার
১৪

বাজার সিন্ডিকেটের চানরাত

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারি ২০২৩  

কবে শবে বরাত-কদর? কোন তারিখে শুরু রোজা? এরপর ঈদ! রোজাদার মুসলিমরা এখনো নিশ্চিত নন। এদ্দুর শুনেছেন আগামী ২৩ বা ২৪ মার্চ থেকে রমজান মাস শুরু হতে পারে। এ বিষয়ক সিদ্ধান্ত নিতে রাখা হয়েছে চাঁদ দেখা কমিটি। কিন্তু, বাজার সিন্ডিকেট সব দেখে ফেলেছে। ঈদ-চাঁদ তাদের মুখস্থ। মৌসুম দৃষ্টে তাদের চানরাত চলছে, যা শুরু হয়েছে ঢের আগেই। মৌসুমি বাণিজ্য হাতাতে করণীয়র যাবতীয় ছক আগেই করে শুরু করেছে বাস্তবায়ন। আদা-সাধা থেকে রসুন, বুট, ছোলা, ডাল, তেল, মসলাসহ রোজা-রমজানের জরুরি সব আইটেমের কারসাজি তাদের কব্জায়। বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট ও ডলার সংকট তাদের জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছে। সব কিছুতে রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধ আর ডলার সংকটের অজুহাত তাদের। কিশোরগঞ্জের শুঁটকি, কুমিল্লার কচুরলতি বা নরসিংদীর লাউয়ের দরেও শোনানো হয় ডলার ক্রাইসিসের কথা। জ্বালানি তেল পরিস্থিতির জন্য রাশিয়া প্রাসঙ্গিক। চাল, আটা-ময়দার চড়া দামের জন্য ইউক্রেনের দুরবস্থা, আর আদা-রসুনে জানানো হয় চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের কূটনৈতিক বিরোধের তথ্য। এসব তথ্য একদম অমূলক বা ভিত্তিহীন নয়। যোগসূত্র অবশ্যই বিদ্যমান। কিন্তু, দোহাই আর অজুহাতের নমুনা বড় নির্মম। এরা অচেনা নয়, কিন্তু অধরা। ক্ষেত্র বিশেষে যেন সরকারের চেয়েও শক্তিশালী। তার মানে সরকার এদের চেয়ে কমজোরি? নিষ্পত্তিহীন প্রশ্ন।

বিলাসিতা পরিহার করে সংযম চর্চা রমজানের মূল শিক্ষা হলেও বাস্তবে মাসটিতে দেশের সিংহভাগ মানুষের ভোগ-চাহিদা মাত্রা ছাড়িয়ে যায়। বিশেষ করে ভোজ্য তেল, ছোলা, ডাল, মটর, পেঁয়াজ, মসলা, চিনি, খেজুর, বেগুনের পাশাপাশি মাছ-মাংসের চাহিদা বাড়ে দ্বিগুণের বেশি। এর লাগাম টানার আহ্বান জানানো হলেও নিয়ন্ত্রণ করা অনেকটাই অসাধ্য। ঝুঁকিপূর্ণও। নিয়ন্ত্রণ আরোপের চেষ্টা নয়, কম খরচের আহ্বান বেশি রাখলেও ভিন্ন অর্থ টেনে আনার ভয় কাজ করে। এর পুরো সুযোগটা নেয় বাজার সিন্ডিকেট। কৃত্রিম সংকট তৈরি করে হাহাকার ছড়ানো, নিত্যপণ্যের বাজার চড়ানোর অবারিত সুযোগ আপনাআপনিই চলে যায় তাদের হাতে। সরকারের নীতিনির্ধারকদের জন্য এটি কিছুটা বিষে আক্রান্ত হওয়া বা বিষ খেয়ে বিষ হজম করার মতো দশা। এবার নিত্যপণ্যের বাড়বাড়ন্ত অবস্থার মধ্যে রমজানকে টার্গেট করে সিন্ডিকেট বেশি তৎপর। গত ক’দিন ধরে প্রতিটা দিনই তাদের কাছে চানরাতের মতো। বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট ও ডলার সংকটকে কাজে লাগিয়ে মুনাফাবাজির ষোলোকলা ভরছে তারা। চাল, ডাল, পেঁয়াজ, আদা, রসুন, আটা, ময়দা, সয়াবিন তেল, পাম অয়েল, হলুদ, মরিচ, এলাচ ও দারুচিনিসহ প্রায় সবপণ্যেই থাবা বসিয়েছে। নতুন করে কেবল দাম বাড়ায়নি, সামনে মাল পাওয়া কঠিন হবে মর্মে আতঙ্ক তৈরিতেও কামিয়াব হয়ে গেছে।

এরইমধ্যে পরিস্থিতি বিবেচনায় চাহিদার অতিরিক্ত পণ্য না কেনার আহ্বান জানিয়ে ট্রল আইটেম করে ফেলা হয়েছে বাণিজ্যমন্ত্রীকে। অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা এসেছে সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে। এতে গা মাখা বা ভয় পাওয়া কবেই ভুলে গেছে কথিত সিন্ডিকেট। জটিলতার মধ্যেও এলসির বহু পণ্য বন্দরে এসেছে-আসছে। ডলার সংকটে চালান খালাসে কিছুটা সমস্যা দেখা দিয়েছে তাও সত্য। এ সত্যকে ভিত্তি ধরে আমদানিকারকদের প্রতিদিন লাখ লাখ ডলার ক্ষতির কথা বেশি বেশি প্রচারের মধ্যে সামনের দিনগুলোতে পণ্যমূল্য আরও বৃদ্ধির বার্তা পাচ্ছে মানুষ। যে পর্যায় বা পেশার মানুষই হোক তারা প্রতিদিনই দ্রব্যমূল্যসহ নানা সংকটের উত্তাপ টের পাচ্ছেন। যেসব এলসি হয়ে গেছে, সেসব পণ্যের অর্থ সময়মতো খালাস করতে পারলে সংকট প্রকট হওয়ার কথা নয়। কিন্তু, তা প্রকাশের ভাব-ভঙ্গিতে মতলব পরিষ্কার। রমজান উপলক্ষে নিত্যপণ্যের জোগান নিশ্চিত ও দাম সহনীয় রাখতে সরকারের উদ্যোগকে পারলে আড়ালই করে ফেলা হচ্ছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় ডিসেম্বরের মাঝামাঝি বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা ও নীতি বিভাগ থেকে জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ২০২৩ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত ভোজ্য তেল, ছোলা, ডাল, মটর, পেঁয়াজ, মসলা, চিনি ও খেজুর ৯০ দিনের সাপ্লায়ার্স বা বায়ার্স ক্রেডিটের আওতায় আমদানির সুযোগ পাবেন ব্যবসায়ীরা। যা ডলার সংকটের এই সময়ে এলসির অনিশ্চয়তা কিছুটা কমেছে। কিন্তু, সুযোগের অপেক্ষমাণদের তৎপরতা কমেনি।

কথাচ্ছলে বলা হয়ে থাকে, মুক্তবাজারে সরকার হস্তক্ষেপ করে না বা করতে পারে না। বাজার অর্থনীতি নিয়ে এ ধরনের আরও কিছু কথামালা প্রচলিত আছে। এসব কথার মধ্যে এন্তার ফাঁকফোকর। আগে-পিছে প্রচুর পরিমাণে ‘যদি, কিন্তু, তবে’ লুকানো এসব কথার পিঠে কথার সঙ্গে কিছু প্রশ্নও রয়েছে। বাজারে হস্তক্ষেপের চেয়ে এখানে বাজার নষ্টের হোতাদের শায়েস্তা করা বেশি প্রাসঙ্গিক। সেইক্ষেত্রে কেবল হস্তক্ষেপ নয়, প্রয়োজনে পদক্ষেপও প্রত্যাশিত। এটি সরকারের বিশেষ দায়িত্বও। যে কারণে ধরপাকড়-জরিমানাসহ অভিযান চলে এদের বিরুদ্ধে। কিন্তু, সুফলটা কাক্সিক্ষত মাত্রায় আসে না। অভিযানকারীরা চলে যাওয়ার সঙ্গে-সঙ্গে বাজার দুর্বৃত্তরা বেঁকে বসে। পারলে আগের চেয়ে আরেকটু বেশি করে। কেবল চিনি-পেঁয়াজ, নুন-মরিচ নয়; কচুরলতি-শুঁটকির বাজারও নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ফেলে। জীবনরক্ষাকারী ওষুধের দাম, মজুদ, সরবরাহের নিয়ন্ত্রকও তারা। এদের রুখতে সংশ্লিষ্ট কর্র্তৃপক্ষকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে একগুচ্ছ জরুরি নির্দেশনা জারি করাই আছে। নির্দেশনাগুলো কম-বেশি পালন হলেও এদের দমানো যাচ্ছে না। এই ছিনিমিনি, চালবাজিসহ বাজার পরিস্থিতির হোতারা অজানা-অচেনা নয়।

বহুদিন ধরে ‘চক্র-গোষ্ঠী’ ধরনের নামে সম্বোধন করা হতো এদের। গত বছর কয়েক ধরে ডাকা হয় ‘সিন্ডিকেট’ নামে। এদের কারণে সিন্ডিকেট নামের সুন্দর শব্দটির অর্থ বদলে গেছে। সিন্ডিকেট শব্দটি ফরাসি ভাষা থেকে আগত। উৎপত্তি ল্যাটিন শব্দ সিন্ডিকাস থেকে। ব্যাখ্যায় সিন্ডিকেট হলো: ব্যক্তি, কোম্পানি, করপোরেশন বা সংস্থার একটি স্ব-সংগঠিত গোষ্ঠী যা কিছু নির্দিষ্ট ব্যবসায় লেনদেন করার জন্য অথবা একটি অংশীদারত্বমূলক স্বার্থ অনুসরণ বা প্রচারের উদ্দেশ্যে গঠিত হয়। অভিধানে সিন্ডিকেটের প্রথম সংজ্ঞা হচ্ছে, ব্যবসায়িক উদ্যোগ বা সংগঠিত সংস্থাগুলোর একটি যৌথ প্রকল্প যা যৌথ মূলধন প্রয়োজনের জন্য গঠিত। কিন্তু, বাস্তবে এখানে অর্থটা ভিন্ন। বলার অপেক্ষা থাকছে না, কিছু লোকের কাণ্ডকীর্তিতে ‘সিন্ডিকেট’ শব্দটির ব্যবহার প্রায়ই অবৈধ কার্যকলাপে জড়িত অর্থ হয়ে গেছে। অথচ এক সময় সিন্ডিকেট শব্দটি স্মার্ট ছিল। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামের সঙ্গে সিন্ডিকেট-অ্যাসোসিয়েটস ধরনের শব্দ ব্যবহারে জৌলুশ ছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট মেম্বার বলতে অন্যরকম গর্ব হতো। এখন ব্যবহার হয় ‘দুষ্টচক্র’ অর্থে। দেশে সিন্ডিকেট বলতে এখন বোঝায়, মধ্যস্বত্বভোগী। তারা এ সমাজেরই অংশ। আমাদের চারপাশে বা মধ্যেই তাদের বিচরণ। কিন্তু, নিজেকে বা নিজেদের ‘সিন্ডিকেট’ বলে পরিচয় দেয় না। আবার কেউ আঙুল তুলে তাদের সিন্ডিকেট নামে ডাকে না। কিন্তু, নাম-ঠিকানাসহ জানে, চেনে। সরকারের দিক থেকেও সিন্ডিকেট শব্দ ব্যবহার হয়। এই সিন্ডিকেট সাহেবদের কর্মপরিধি কেবল চাল, ডাল, পেঁয়াজ, মাছ, মাংস, তেল, তরিতরকারি, ফলমূল, চিনি, লবণসহ নিত্যপণ্য নিয়ে নয়। পরিবহন, ব্যাংক-বীমা, গ্যাস-বিদ্যুৎ, ব্যবসা-বাণিজ্য, আমদানি-রপ্তানি, ঠিকাদারি, সরকারি কেনাকাটাসহ প্রায় সব সেক্টরেই। এদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত স্বাস্থ্য-চিকিৎসাও। একাধিক ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান মিলে উদ্দেশ্য হাসিল করে চলছে তারা। শুধু সাধারণ মানুষের জীবন নাজেহাল নয়, সরকারকেও অক্টোপাসের মতো গিলে ফেলার অবস্থা করে দিচ্ছে এ সিন্ডিকেট।

বিভিন্ন সেক্টরে ঘটনাচক্রে নানান সিন্ডিকেটের কথা আসে। সিন্ডিকেট নেই কেবল গরিব ভোক্তাদের। এরাই হচ্ছে টার্গেট গ্রুপ। তাদের উদ্দেশ্য করে সিন্ডিকেট বেশ ক্রিয়াশীল। নিজেদের স্বার্থে এরা যেকোনো সময় জনগণকে জিম্মি করে ভোগান্তিতে ফেলতে কার্পণ্য করে না। এরা এক সেক্টরেও থাকে না। দেশ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচারেও এরাই। মানবপাচার, খুন, গুম, ধর্ষণ ও বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডও চলে বিভিন্ন সিন্ডিকেটের মাধ্যমে। মৌসুম দৃষ্টে সেক্টর বদলায় অদৃশ্য শক্তির মতো। বিভিন্ন সেক্টরে মামুরা আর খালুরার মতো তারা তারাই করে যাচ্ছে নানা অপকর্ম।

চুরির ওপর সিনাজুরিতে এরা কেবল ক্রেতাকুলকে নয়, গোটা দেশ এমনকি সরকারকেও কাহিল করে চলছে। কিন্তু, সরকার সিন্ডিকেটকে সেই অনুপাতে কাবু করতে পারে না। জনগণের সঙ্গে পরিচয় করিয়েও দেয় না। শনাক্ত করার পদক্ষেপও নেয় না। পরিণামে দমনের চেষ্টা করেও কুলাতে পারে না। অথচ সিন্ডিকেটের কাজের দায়-বদনামের সিংহভাগ গড়ায় সরকারের ওপর। অজুহাতে পাকা এই চক্র করোনা মৌসুমে দাবড়িয়েছে সব সেক্টর। এরপর রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধকে আশীর্বাদ হিসেবে পাকাপোক্তভাবে ভর করেছে খাদ্য থেকে ওষুধ পর্যন্ত যাবতীয় নিত্যপণ্যে। যথারীতি গত ক’দিন ধরে তাদের যাবতীয় কর্মযজ্ঞ রমজানকে ঘিরে।

 

লেখক:মোস্তফা কামাল
 সাংবাদিক-কলামিস্ট; বার্তা সম্পাদক, বাংলাভিশন

 

 

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার