• বুধবার   ২০ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৪ ১৪২৮

  • || ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
প্রথমবার জাতীয়ভাবে পালিত হচ্ছে ‘শেখ রাসেল দিবস’ জুড়ীতে ইউপি নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দিলেন যারা আজ থেকে টিকা পাচ্ছেন শাবির সকল শিক্ষার্থী সিলেটের মন্দিরে হামলা ঠেকাতে রাত জেগে ছাত্রলীগের পাহারা হবিগঞ্জে ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ, সড়ক অবরোধ বিয়ানীবাজারে ইয়াবাসহ নারী গ্রেপ্তার শেখ রাসেলের জন্মদিনে সিলেট জেলা আ. লীগের মিলাদ

বালাগঞ্জে শিক্ষার্থীকে ঘর থেকে তুলে নেয়ার চেষ্টার অভিযোগ

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২৫ জুন ২০২১  

বালাগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে অস্ত্রেরমুখে ভয় দেখিয়ে এক কলেজ ছাত্রীকে নিজ বসতঘর থেকে তুলে নেয়ার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, গত শুক্রবার (১৮ জুন) দুপুর পৌনে ২টার দিকে উপজেলার দেওয়ান বাজার ইউনিয়নের নিজগহরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ভিকটিম কলেজ ছাত্রী সাবিনা বেগম (২০) ছাড়াও তার মা রুকিয়া বেগম (৬৫) এবং চাচী আফিয়া বেগম (৫৫) হাত এবং মাথায় রক্তাক্ত জখম হন। অভিযুক্ত প্রতিবেশী যুবক আশিকুন নূরকে আটকে রেখে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় কলেজ ছাত্রীর পিতা মো. সিতাব আলী বাদী হয়ে বালাগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

বালাগঞ্জ থানার অফিসার মোহাম্মদ নাজমুল হাসান এ ব্যাপারে সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, দায়েরকৃত মামলার প্রধান আসামী আশিকুন নূরকে গ্রেফতার পূর্বক জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলার তদন্ত চলছে এবং অন্য অপরাধীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার (১৮ জুন) দুপুর পৌনে ২টার সময় এ ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার সময় ভিকটিম কলেজ ছাত্রী সাবিনা বেগম এবং তার মা রুকিয়া বেগম ছাড়া পরিবারের পুরুষরা জুমার নামাজের উদ্দেশ্যে বাড়ির বাইরে ছিলেন। বাড়িতে পুরুষশূণ্য অবস্থায় স্থানীয় নিজগহরপুর গ্রামের সোনাফর আলীর ছেলে আশিকুন নূর (২৪) এবং আনোয়ারপুর গ্রামের ছুরাব আলীর ছেলে মিন্না আহমেদ (২৬) ও আকবর আলীর ছেলে রুজন মিয়া (২৮) পরস্পর যোগসাজশে ভিকটিম কলেজ ছাত্রী সাবিনা বেগমকে ধারালো অস্ত্রেরমুখে জোরপূর্বক তুলে নেয়ার উদ্দেশ্যে বাড়িতে হানা দেয়।

এ সময় ভিকটিম ও তার মা ছাড়া আর কেউ ঘরে না থাকার সুযোগে অভিযুক্ত আশিকুন নূর ঘরে প্রবেশ করে সাবিনা বেগমকে তুলে নেয়ার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্রেরমুখে উঠোনে বের করে আনে। এ সময় ভিকটিমের চিৎকার শোনে তার মা রুকিয়া বেগম এবং চাচী আফিয়া বেগম বেরিয়ে এসে সাবিনাকে উদ্ধার করতে চাইলে আশিকুন নূরসহ অন্য অভিযুক্তরা প্রতিরোধকারী নারীদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় হামলাকারীরা রুকিয়া বেগমকে হাতে এবং আফিয়া বেগমকে মাথায় আঘাত করলে তারা রক্তাক্ত আহত হন। এছাড়া ভিকটিম সাবিনা বেগমও আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন। এ সময় অন্যান্য প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে অভিযুক্ত আশিকুন নূরকে আটক করেন। তবে অপর অভিযুক্তরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

আহত রুকিয়া বেগম এবং আফিয়া বেগমকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। এ ঘটনায় ভিকটিম কলেজ ছাত্রীর মা রুকিয়া বেগমের বাম হাতের একটি আঙ্গুলের আংশিক অংশ কেটে পড়েছে। এছাড়া ভিকটিমের চাচী আফিয়া বেগমকে মাথায় সেলাই দিতে হয়েছে।

এদিকে সংবাদ পেয়ে বালাগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে অভিযুক্ত আটক আশিকুন নূরকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায় এবং জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। ঘটনার পরদিন শনিবার (১৯ জুন) ভিকটিম কলেজ ছাত্রী সাবিনা বেগমের পিতা মো. সিতাব আলী বাদী হয়ে আশিকুন নূর, মিন্না আহমেদ ও রুজন মিয়াকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেছেন।

এ ব্যাপারে বালাগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ নাজমুল হাসান বলেন, এ ঘটনায় ১ জনকে ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতারসহ মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, অভিযুক্ত অন্যদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে এবং মামলার তদন্ত চলছে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার