• শনিবার   ২৮ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪২৯

  • || ২৫ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
তরমুজ ফ্রিজে রাখবেন না যে কারণে হবিগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ ইউএনও মাধবপুরের মঈনুল পদ্মাসেতু দাঁড়িয়ে যাওয়ায় বিএনপির হিংসা হচ্ছে বড়লেখায় হত্যা চেষ্টা মামলায় প্রধান শিক্ষক কারাগারে বালি উত্তোলন না করার দাবিতে তাহিরপুরে মানববন্ধন বিশ্বনাথে জেলা আ’লীগের পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ করলেন শফিক চৌধুরী
৯৭

অনাবাদি থাকবে না গোয়াইনঘাট উপজেলার এক ইঞ্চি জমিও

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২ ডিসেম্বর ২০২০  

মাটি, সবুজের সমারোহ, প্রকৃতি আমাদের প্রায় সকলকেই আকৃষ্ট করে । আর এই সূত্র ধরে মাটির সঙ্গে কৃষির সাথে রয়েছে আমাদের নাড়ীর সম্পর্ক । আমাদের দেশের বেশীর ভাগ মানুষ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে কৃষির সঙ্গে জড়িত । আবার অনেকে নতুন ভাবে কৃষিতে ঝুকছেন । এটা সত্যিই বড় প্রশান্তির,গর্বের ব্যাপার।

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার সর্বত্র কৃষিতে জড়াচ্ছে মানুষজন। কৃষি ক্ষেতের আওতায় আসছে সব অনাবাদী জমি । সবকটি ইউনিয়নে গড়ে উঠছে কৃষি আবাদ। সোনালী ধাণের পর এবার সবুজ ফসলে ভরে উঠছে মাঠ।

গোয়াইনঘাটের পশ্চিম জাফলং ইউপির আলীর গ্রামের উনাই হাওর এখন দুশতাধিক পরিবারের জীবন জিবীকার উৎস। গ্রামবাসির একাধীক  কৃষি  প্রজেক্ট পরিদর্শন  ও পরামর্শ দিচ্ছেন  উপজেলা  কৃষি কর্মকর্তা  সুলতান আালী।

উনাই হাওরে প্রায় দুইশত বিঘা জমিতে কৃষি বিভাগের  সহায়তায় করা হয়েছে রবি মওসুমের সবজি,বাদাম,পিয়াজ, মরিচ, ফরাস শসা খিরা  লাউ জিংগা করোলা ইত্যাদি।সবুজ ফসলের  সমারোহ উনাইয়ের বুকে। কৃষি কর্মকর্তা ঘন্টাব্যাপী সময় নিয়ে মাঠ ঘুরে দেখেন, কৃষকদের নানা পরমর্শ  দিয়ে বলেন  কৃষিক্ষেত্রে  উজ্জল সম্ভাবনা রয়েছে এখানে। এ  ছাড়া উপসহকারীকৃষি কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেন   ফসলের মাঠ  পরিদর্শনে  গিয়ে কৃষকদের  নানা বিষয়ে মতবিনিময় ও পরামর্শ  দেন। সচেতন প্রায় একশতটি কৃষক পরিবার মনে করেন উনাই হাওরে সবুজ সোনা রয়েছে উত্তোলনে প্রয়োজন সরকারের সহযোগিতা।

বর্তমান সরকার কৃষির উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে গোয়াইনঘাট উপজেলায় প্রায় ৩২শত কৃষক পরিবারের মাঝে বোরো মৌসুমের জন্য উচ্চ ফলনশীল হাইব্রিড জাতের ধানের বীজ সার সহ হরেক রকম কৃষি প্রণোদনা বিতরণ করছে। এ ছাড়া উপজেলা পরিষদের পক্ষে এডিপির অর্থায়নে পাঁচশত কৃষককে সরিষা ও পিয়াজের বীজ প্রদান করা হয়। উপজেলা কৃষি পুনর্বাসন কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাজমুস সাকিব অত্যন্ত স্বচ্ছতার নিরিখে প্রকৃত কৃষকেরা যাতে সুফল ভোগ করতে পারে, সেই মোতাবেক কাজ করার পরামর্শ দিচ্ছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুলতান আলী জানান বৈশ্বিক করুণায় মানুষেরা কর্মসংস্থান হারিয়ে কৃষির দিকে ঝুঁকছে, বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার, সরকারের সর্বাত্বক সহযোগিতায় আমরা কৃষকদেরকে কৃষিতে উদ্বুদ্ধ করতে সকল প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। উপজেলার পশ্চিম জাফলং পূর্ব  জাফলং ইউনিয়ন সহ কয়েকটি ইউনিয়নে প্রায় আড়াই শতাধিক কৃষক পরিবার বাণিজ্যিকভাবে আগাম সবজি ফলিয়ে সফলতার মুখ দেখছে এবং আর্থিকভাবে মুনাফা লাভ করছে। উপজেলার অনেকগুলো ইউনিয়নে সবজিক্ষেতের প্রদর্শনী রয়েছে, যা দেখে কৃষকরা কৃষিতে উৎসাহ পাচ্ছে, তিনি আরো বলেন বিগত বোরো মৌসুমে অনেকগুলো সেচ প্রকল্প বন্ধ ছিল, এইবার আমরা এই সেচ প্রকল্পগুলোর নানান জটিলতার অবসান ঘটিয়ে বর্তমান বরো মৌসুমে  চালু করার ব্যবস্থা করেছি।
তিনি বলেন, এ বছর আমরা কৃষিতে অনেক নতুন মুখ দেখছি, স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্ররাও কৃষিতে এগিয়ে এসেছে, কৃষিতে তাদের এই আগমন কৃষি কে সম্ভাবনাময়ী করে তুলতে অনন্য অবদান রাখবে। পশ্চিম জাফলং উনাইর হাওর সম্পর্কে বলেন এই বছর কৃষকেরা সফলতার মুখ দেখলে আগামীতে যে জমি পতিত রয়েছে তাও আবাদের আওতায় চলে আসবে। কৃষি কর্মকর্তা সুলতান আলী বলেন আমি এবং উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায় থেকে কৃষকদেরকে কৃষি পরামর্শ ও দিকনির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছে। কৃষি বিষয়ে যে কোন পরামর্শ ও দিকনির্দেশনা দিতে উপজেলা কৃষি বিভাগ সর্বসময় প্রস্তুত আছে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার