• বুধবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১৩ ১৪২৯

  • || ০১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
শাবিপ্রবিতে ১ থেকে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত ছুটির ঘোষণা জেলা পরিষদের সদস্য প্রার্থী তানভীরের মতবিনিময় সভা গুলিতে নয়, ইটের আঘাতে যুবদল কর্মী শাওনের মৃত্যু: এসপি সাকিব-মুশফিক ছাড়া প্রথম সিরিজ জয় এশিয়া কাপ খেলতে সিলেটে জাহানারা-জ্যোতিরা নবির কাছে সিংহাসন হারালেন সাকিব বিশ্বনাথে শেখ হাসিনার জন্মদিনে আ’লীগের কেক কাটা
৪০

শাবিপ্রবিতে শিক্ষক লাঞ্ছনার প্রতিবাদে মানববন্ধন

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ৩০ আগস্ট ২০২২  

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে এম. সাইফুর রহমান ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ দ্বারা এক প্রভাষককে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদ ও ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) সমাজকর্ম সমিতি ও এলামনাই এসোসিয়েশন।

সোমবার (২৯ আগস্ট) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, গত ২৪ আগস্ট কোম্পানীগঞ্জের এম. সাইফুর রহমান ডিগ্রি কলেজে শিক্ষকদের সভায় কলেজের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আলোচনা চলাকালে অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম ওই কলেজের প্রভাষক ও শাবির সমাজকর্ম বিভাগের সাবেক ছাত্র ইকবাল হোসেনকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত ও হেনস্তা করেন। পরদিন ওই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও প্রভাষককে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ এনে কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করেন। শিক্ষার্থীরা অধ্যক্ষের অপসারণের দাবিতে ক্লাস বর্জন করেন এবং এ দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপিও দেন।

তারা বলেন, অধ্যক্ষের এমন আচরণের নিন্দা ও অপসারণের দাবি ও একই সাথে প্রভাষক ইকবাল হোসেন যাতে আইনি লড়াইয়ে সুষ্ঠু বিচার পান, সেই দাবিও জানাচ্ছি।

মানববন্ধনে সমাজকর্ম বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ইসমাইল হোসেন বলেন, একজন অধ্যক্ষ কখনোই একজন শিক্ষককে শারীরিক কিংবা মানসিকভাবে লাঞ্ছিত করতে পারেন না। আমরা দেখেছি যে কলেজের সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থী ইকবালের পক্ষে ছিলেন। আর এটাই প্রমাণ করে যে ইকবাল হেনস্তার শিকার হয়েছেন। কলেজের অধ্যক্ষ অনৈতিক কাজ করেছেন। এ ব্যাপারে অধ্যক্ষকে আইনের আওতায় নিয়ে এনে সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানাই।

সমাজকর্ম অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ড. মোহাম্মদ আলী ওক্কাস বলেন, এ ঘটনার পর থেকে কলেজের ছাত্ররা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করছে। এর সুষ্ঠু বিচার না হওয়া পর্যন্ত ছাত্ররা ক্লাসে ফিরবে না। কলেজের সকল শিক্ষক ও শিক্ষার্থী এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। আর এ থেকেই বোঝা যায় কলেজের শিক্ষক ইকবাল হোসেন হেনস্তার শিকার হয়েছেন। এ ঘটনায় যারা জড়িত রয়েছেন তাদের সকলকে আইনের আওতায় নিয়ে এসে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে বিচারের দাবি জানাই। এসময় সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষক ও সাবেক এবং বর্তমান শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার