• বুধবার   ১০ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৬ ১৪২৯

  • || ১১ মুহররম ১৪৪৪

সর্বশেষ:
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু রচিত বই বিতরণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন সাকিবকে নোটিশ পাঠাল বিসিবি সিলেটের শ্রেষ্ঠ এএসআই মোহাম্মদ অলিউল হাসান
৩৯

ওসমানীনগর ট্র্যাজেডি: মৃতদের দাফন, মামলা অপমৃত্যুর

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২৮ জুলাই ২০২২  

সিলেটের ওসমানীনগরে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসীর মৃত্যু এবং ৩জন গুরুতর অসুস্থ হওয়ার ঘটনার ৩ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো রহস্য উদঘাটন হয়নি। তবে নিকট আত্মীয়দের জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। সেই সাথে স্বজনসহ নিহত এবং অসুস্থদের মোবাইলের কল রেকর্ড খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নিহত রফিকুল ইসলামের স্ত্রী হুছনেআরা ও তাদের ছেলে সাদিকুল ইসলামের অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলেও মেয়ে সামিরা ইসলাম এখনো আশঙ্কাজনক অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগে চিকিৎসাধীন। বুধবার (২৭ জুলাই) রাতে ঘটনার সংবাদদাতা রফিকুল ইসলামের শ্যালক দেলোয়ার হোসেনের খবরের প্রেক্ষিতে ওসমানীনগর থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের হয়েছে (নং ২১/২২)।

বুধবার রাতে পুলিশ  প্রশাসন আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে পরিবারের নিকট যুক্তরাজ্য প্রবাসী রফিকুল ইসলাম ও তার ছেলে মাইকুল ইসলামের লাশ হস্তান্তর করলে বৃহস্পতিবার দুপুর সোয়া দুইটায় উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের পারকুল মাদ্রাসা মাঠে পিতা-পুত্রের জানাজার পর নিজ গ্রাম দিরারাই খাতুপুরে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। জানাজায় উপস্থিত ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য ও সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এদিকে, ঘটনার খবর পেয়ে বুধবার দেশে ফিরেন নিহত রফিকুল ইসলামের বৃদ্ধা মা জরিনা বেগম, ভাই শফিকুল ইসলাম, বিজেকুল ইসলাম ও বোন শাহিনা বেগম।

প্রসঙ্গত, গত ১৮ জুলাই উপজেলার তাজপুর স্কুল রোডে একটি ভাড়া বাসায় উঠেন যুক্তরাজ্য প্রবাসী রফিকুল ইসলাম, তার স্ত্রী হুসনে আরা বেগম, ছেলে সাদিকুল ইসলাম, মাইকুল ইসলাম ও মেয়ে সামিরা ইসলাম। বাসায় তাদের সাথে বসবাস করছিলেন রফিকুল ইসলামের শশুর আনফর আলী, শাশুড়ী বদরুন্নেছা, শ্যালক দেলোয়ার হোসেন, শ্যালকের স্ত্রী শোভা বেগম ও তাদের শিশু মেয়ে সাবিলা বেগম। ২৫ জুলাই সোমবার রাতের খাবার শেষে প্রবাসী পরিবারের সবাই একটি কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। পরদিন ২৬ জুলাই মঙ্গলবার সকালে ডাকাডাকির পর প্রবাসীদের সাড়া শব্দ না পেয়ে সকাল সোয়া ১১টায় '৯৯৯' নম্বরে ফোন করেন রফিকুল ইসলামের শ্যালক দেলোয়ার হোসেন।

খবর পেয়ে ওসমানীনগর থানা পুলিশ দরজা ভেঙে অচেতন অবস্থায় প্রবাসী ৫জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠালে কর্তব্যরত ডাক্তার পিতা ও ছেলেকে মৃত ঘোষণা করে।

পরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন সিলেটের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহমদ পিপিএম, পুলিশ সুপার (পদোন্নতিপ্রাপ্ত অতিরিক্ত ডিআইজি) ফরিদ উদ্দিন পিপিএম, ওসমানীনগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলাম।

ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম মাঈন উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। রহস্য উদঘাটনে পুলিশের তদন্ত অব্যাহত আছে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার