• বৃহস্পতিবার   ১৮ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ৩ ১৪২৯

  • || ১৯ মুহররম ১৪৪৪

সর্বশেষ:
বৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জে আসছেন পরিকল্পনামন্ত্রী মান্নান আওয়ামী লীগের গর্জনে কাঁপছে সিলেটের রাজপথ বাংলাদেশ সংকটে নেই, ঋণখেলাপিতে যাওয়ার ঝুঁকি কম: আইএমএফ বিদ্যুতায়িত হয়ে মৃত্যুর ঘটনায় অভিযোগ কেন্দ্রের ইনচার্জ বরখাস্ত
৫৭

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি, তলিয়ে গেছে রাস্তাঘাট   

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ১৭ মে ২০২২  

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় গত কয়েকদিনের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও টানা বর্ষণে আবারও বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে নিম্নাঞ্চল। নদ-নদীর পানি বেড়ে গিয়ে বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। মানুষের বসতবাড়িতে পানি উঠে চরম বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। পানিবন্দি মানুষের মাঝে এক ধরনের আতঙ্ক বিরাজ করছে।

সোমবার (১৬ মে) বিকেল পর্যন্ত বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। বন্যার পানি অব্যাহত রয়েছে। 

অপরদিকে, গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢল হওয়ায় ঢলের পানি বেড়ে গোয়াইনঘাটের সিংহভাগ অঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বসতবাড়িসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পানি উঠেছে। মানুষের গবাদি পশু নিয়ে পড়েছেন চরম বিপাকে। উপজেলার বেশ ক'টি ইউনিয়নে পানি বেড়ে গিয়ে উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এতে বিভিন্ন সড়ক ডুবে গেছে। যার কারণে সড়কপথে সিলেট জেলা শহরের সঙ্গে গোয়াইনঘাট উপজেলা সদরের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

উপজেলার বাসিন্দারা জানান, অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের পানি জাফলং এলাকার পিয়াইন নদী এবং সা‌রি নদী দিয়ে এলাকায় ঢুকছে। এতে উপজেলার সবকটি ইউনিয়নে পানি উঠে প্লাবিত হয়েছে। রাস্তাঘাট ও বাড়িঘরে পানি উঠে আতঙ্কের মাঝে রয়েছি।

পানিবন্দি একাধিক ব্যক্তি জানান, বসতঘরে পানি উঠে গেছে। জরুরি কাজ থাকা সত্ত্বেও কোথাও বের হওয়া যাচ্ছে না। রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় নৌকা দিয়ে পার হতে হচ্ছে। যার কারণে উপজেলা সদরের সঙ্গে জেলা শহরে যাতায়াতের দুটি সড়ক সারী-গোয়াইনঘাট ও সালুটিকর-গোয়াইনঘাট সড়ক প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। গোয়াইনঘাট উপজেলায় যাতায়াতের প্রধান দুই সড়কের কিছু অংশে পানি উঠে।

এদিকে, বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সকলকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সাবধানতা অবলম্বন ও সকলকে সতর্ক অবস্থানে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. তাহমিলুর রহমান।

তিনি জানান, গোয়াইনঘাটে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। ইতোমধ্যে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় এর নির্দেশনায় ত্রাণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। সরকারের কাছে পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুদ আছে। এ কার্যক্রম চলমান থাকবে। ত্রাণের সাথে পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট দেওয়া হচ্ছে। পানি পানে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে হবে। এ সময়ে বজ্রপাত, পানির স্রোতে নৌকাডুবি, বাধভাঙ্গা, গাছ উপড়ে যাওয়া, সাপেকাটাসহ নানান দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই সাথে সাথে উপজেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের জানানোর অনুরোধ করা হলো।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার