• মঙ্গলবার   ১৯ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৪ ১৪২৮

  • || ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
প্রথমবার জাতীয়ভাবে পালিত হচ্ছে ‘শেখ রাসেল দিবস’ জুড়ীতে ইউপি নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দিলেন যারা আজ থেকে টিকা পাচ্ছেন শাবির সকল শিক্ষার্থী সিলেটের মন্দিরে হামলা ঠেকাতে রাত জেগে ছাত্রলীগের পাহারা হবিগঞ্জে ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ, সড়ক অবরোধ বিয়ানীবাজারে ইয়াবাসহ নারী গ্রেপ্তার শেখ রাসেলের জন্মদিনে সিলেট জেলা আ. লীগের মিলাদ

ভয় পেলে তো আর জয় পেতাম না: সুনেরাহ

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ৫ ডিসেম্বর ২০২০  

'ভয় না পেলে আসলে অনেক কিছু পাওয়া যায়। ছবিটির আয়েশা চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে যে কষ্ট আমাকে করতে হয়েছে। সেটা যদি ভয় পেয়ে বাদ দিতাম। তাহলে এ সম্মান  আমি পেতাম না। জাতীয় পুরস্কারেরর মতো এতো বড় অর্জন হাতছাড়া হয়ে যেতো। ভয় পেলে সত্যিই কিছু করা যায় না। তাই কোন কাজে ডরানো যাবে না এ শিক্ষাটা ভালো করে অর্জন করেছি। ন ডরাই করার পর  কোন কিছুতে আমিও এখন 'ন ডরাই।' বলাছিলেন  অভিনেত্রী সুনেরাহ বিনতে কামাল। 

সুনেরাহ বিনতে কামাল২০১৯ সালে সেরা অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।‘ন ডরাই’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য এ সম্মান অর্জন করলেন সুনেরাহ। এটি ছিলো তার প্রথম চলচ্চিত্র। প্রথম চলচ্চিত্রেই যেনো বাজিমাত করেছেন সুনেরাহ। বিষয়টি নিয়ে আবেগে আপ্লুতও তিনি। সাক্ষাতকার দেওয়ার সময় সে আবেগের গভীরতা টের পাওয়া গেলো।

আমি উত্তরবঙ্গের, সিনেমার জন্য চাঁটগাঁইয়া ভাষা শিখেছি: সুনেরাহছবিটির জন্য অনেক কষ্ট করেছি সেটাই তখন বার বার মনে পড়ছিলো। কষ্ট করলে যে কৃষ্ট মিলে তার প্রমাণ স্বয়ং আমি। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়ায় আমার বাবা-মা আমাকে নিয়ে গর্ববোধ করেছেন। এটা একটা সন্তানের কাছে অনেক বড় অর্জন।

অনেকেই বলত আমার ভালো কিছু হবে: সুনেরাহসুনেরাহ বললেন, 'এতো বড় অর্জন আমার ভাগ্যে আসবে এটা তো আমি স্বপ্নেও ভাবিনি। 'ন ডরাই' আমাকে মানুষের ভালোবাসা দিয়েছে। তবে জাতীয় মঞ্চে এতোটা দেবে তা আমার কল্পনার বাইরে। 

ভিন্ন চরিত্রে আগ্রহীসাধারণ র‌্যাম্পে সবসময় গ্ল্যামার লুকেই দেখা গেছে সুনেরাহকে। ন ডরাই ছবিতে সে ধারার বাইরে এসে অন্য এক সুনেরাহ হয়ে উঠেছিলেন তিনি। যে সুনেরা একেবারে অপরিচিত একজন। নেই গ্ল্যামার, নেই লাইটের ঝলকানি। ছিলো কেবল রোদ আর সমুদ্রের নোনা জলে তামাটে হয়ে যাওয়া  আয়েশা চরিত্রের অভিনয়। তবে আযেশা হয়ে উঠার পেছনে 'ন ডরাই'য়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত সবাই যে সহযোগিতা করেছেন তার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে শেষ করা যাবেনা বলেই মন্তব্য করলেন সুনেরাহ। 

আমি উত্তরবঙ্গের, সিনেমার জন্য চাঁটগাঁইয়া ভাষা শিখেছি: সুনেরাহনিজের ভালোলাগা থেকেই শোবিজে কাজ শুরু  সুনেরাহর। ম্যারাথন গতিতেই ছুটছিলেন ক্যারিয়ার নিয়ে।এই সুনেরাহ যে এক ছবিতে অভিনয় করেই  এতোটা গুরত্বপূর্ণ কেউ হয়ে উঠবেন তা ভাবেনি তার পরিবারও। পরিবারও বন্ধুবান্ধবরা এখন সুনেরাহকে নিয়ে গর্ব করছেন। 

সুনেরাহ: জেদের বশে বিলবোর্ডের মডেল হলেন যেভাবে | The Business Standardসুনেরাহর ভাস্যে, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়ায় আমার বাবা-মা আমাকে নিয়ে গর্ববোধ করেছেন। এটা একটা সন্তানের কাছে অনেক বড় অর্জন।'

দেশ রূপান্তর | Desh Rupantorসুনেরাহ আরও বলেন, পুরস্কার পাওয়ার পর সবাই ফোন করে অভিনন্দন জানাচ্ছিলেন। ছবিটির জন্য অনেক কষ্ট করেছি সেটাই তখন বার বার মনে পড়ছিলো। কষ্ট করলে যে কৃষ্ট মিলে তার প্রমান স্বয়ং আমি। 

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার