• সোমবার   ২৭ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৩ ১৪২৯

  • || ২৬ জ্বিলকদ ১৪৪৩

সর্বশেষ:
মঙ্গলবার সিলেটের যেসব এলাকায় বিদ্যুৎ থাকবে না ওসমানীনগরে ২শ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল পুড়িয়ে বিনষ্ট "প্রধানমন্ত্রীর দক্ষ ব্যবস্থাপনায় কেউ না খেয়ে মারা যায়নি" বন্যায় সিলেটে ১২ কোটি টাকার প্রাণিসম্পদের ক্ষতি প্রাকৃতিক দুর্যোগে সিলেটে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৫২ হবিগঞ্জে নদীর পানি কমেছে, উন্নতি নেই হাওরাঞ্চলে হেলিকপ্টারে করে সিলেটের বন্যা পর্যবেক্ষণ করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী
২১

ইউক্রেনের ক্ষতি ৬০০ বিলিয়ন ডলার

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২৯ মে ২০২২  

রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধের তিন মাসে এখন পর্যন্ত ৬০০ বিলিয়ন ডলার ক্ষতি হয়েছে ইউক্রেনের। কিয়েভের স্কুল অব ইকোনমিকসের (কেএসই) এক পরিসংখ্যানে শনিবার তথ্য দেওয়া হয়েছে।

রুশ হামলায় যেসব বাড়ি ও অবকাঠামো ধ্বংস হয়েছে, সেই ক্ষতিও এই রিপোর্টে যুক্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া জিডিপি হ্রাস, বিনিয়োগ হারানো, কর্মীদের দেশ ত্যাগ, প্রতিরক্ষা ব্যয় এবং সামাজিক ক্ষতি সবই এই ৬০০ বিলিয়ন ডলারের মধ্যে রয়েছে। বিবিসি।

খবরে বলা হয়, শুধু অবকাঠামোগত ক্ষতিই হয়েছে ১০৫ বিলিয়ন ডলার। মারিউপোলসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ইউক্রেনীয় শহর এখন রাশিয়ার অধীনে।

এসব শহর দখল করতে গিয়ে ব্যাপক বোমা ফেলেছে রাশিয়া। যেসব শহর দখল করতে পারেনি তাতেও বোমা পড়েছে। খারকিভ এবং চেরনিহিভের অবস্থা ভয়াবহ। ডনবাসের যেসব শহর ভালো প্রতিরোধ গড়ছে তাই ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এসব শহরেই মূলত আবাসিক ভবন সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পাশাপাশি ইউক্রেনীয় কোম্পানিগুলো প্রায় ১১ বিলিয়ন ডলারের অর্থনৈতিক ক্ষতিতে পড়েছে। এর মধ্যে গত এক সপ্তাহেই ৫০০ মিলিয়ন ডলার ক্ষতি হয়েছে। যুদ্ধে দুই শতাধিক ইউক্রেনীয় কোম্পানি, কারখানা এবং প্ল্যান্ট ধ্বংস হয়ে গেছে কিংবা রাশিয়া দখল করে নিয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত ইউক্রেনীয়রা যাতে তাদের ক্ষতি রিপোর্ট করতে পারে তাই কেএসইর ওয়েবসাইটে একটি নতুন ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। এর আগে ইউক্রেনের এক সাবেক অর্থমন্ত্রী দাবি করেছিলেন, ইউক্রেনকে পুনরায় গড়ে তুলতে ৭৫০ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন হবে।

ইউক্রেনকে ভয়ংকর ক্ষেপণাস্ত্র দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র : সামরিক এবং অন্যান্য সহায়তার একটি নতুন প্যাকেজের অংশ হিসাবে ইউক্রেনে এবার দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

আগামী সপ্তাহের মধ্যেই নতুন এই সহায়তা প্যাকেজের ঘোষণা আসতে পারে বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউজ। শুক্রবার সিএনএন প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউক্রেনের সেনাবাহিনীকে দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা দিলে তারা এগুলো রাশিয়ার অভ্যন্তরে বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে হামলার জন্য ব্যবহার করতে পারে, এমন ‘শঙ্কা’ থেকে এর আগে কিয়েভকে ‘উন্নত অস্ত্র’ পাঠায়নি বাইডেন প্রশাসন। তবে এবার সেই অবস্থান থেকে সরে আসছে ওয়াশিংটন।

সেপ্টেম্বরের মধ্যে ইউক্রেনে বিজয় : ইউক্রেনের একের পর এক শহর দখলে নিচ্ছে রাশিয়ান বাহিনী। সবশেষ পূর্ব দোনেস্ক অঞ্চলের লিমান শহরের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে তারা। ঠিক এই সময়েই বিভিন্ন গণমাধ্যমে উঠে এসেছে আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে ইউক্রেনের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ নিতে চায় রাশিয়া। এ বিষয়ে অফিশিয়ালি কোনো তথ্য জানায়নি মস্কো।

তবে পূর্বাঞ্চলে ইউক্রেন সেনাদের পরাজয়-পশ্চাদগমনে সে লক্ষণ কিছুটা হলেও স্পষ্ট হচ্ছে। দোনেস্কর ৯০ ভাগেরও বেশি এখন রুশ বাহিনীর দখলে। পার্শ্ববর্তী শহর সেভারোদনেস্ক থেকেও সরে যাবে ইউক্রেন সেনারা।

ইউক্রেনের এক কর্মকর্তা এই আভাস দিয়েছেন। বিবিসি। এ প্রসঙ্গে প্রদেশের (লুহানস্ক) গভর্নর সেরি হাইদাই বলেছেন, ঘেরাও না হতে চাইলে সৈন্যদের সরে যেতে হবে। শহরের অর্ধেকের বেশি বাড়িঘর ধ্বংস হয়ে গেছে। কমবেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সব ভবন। হামলার সময় বাসিন্দারা আশ্রয়কেন্দে অবস্থান করছিলেন।

দনবাসকে রক্ষায় সবকিছু করা হচ্ছে : ইউক্রেন বলেছে, দনবাসে রাশিয়ার প্রবল আক্রমণে কিছু এলাকায় আত্মসমর্পণ এড়াতে কিয়েভ বাহিনীকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ এলাকা থেকে কৌশলগত পশ্চাদপসরণ করার জন্য উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

এএফপিজেলেনস্কি জাতির উদ্দেশে তার প্রতিদিনের ভাষণে বলেন, ‘রাশিয়া দনবাসে সর্বোচ্চ গোলন্দাজ হামলা এবং সর্বোচ্চ রিজার্ভ সৈন্য কেন্দ্রীভূত করেছে।’ তিনি বলেন, ‘রাশিয়া মিসাইল এবং বিমান থেকে হামলা সব কিছুই করছে। আমাদের যে প্রতিরক্ষা সক্ষমতা আছে সেটি দিয়ে আমরাও আমাদের ভূমি রক্ষা করছি। আমরা এই সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য সবকিছু করছি।’

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার