• রোববার   ২৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৯

  • || ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
নেই বৈধ কাগজ, বন্ধ ৫ টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার সরকারের খাদ্য সহায়তা পেল সিলেটের ১৩ হাজার পরিবার শাহজালাল মাজারে ওরস উপলক্ষে ‘লাকড়ি তোড়া’ উৎসব ১২ ঘণ্টায় ৭ নবজাতকের জন্ম! জাফলং গিলছে বালুখেকোরা, অভিযান-জরিমানা সেমিফাইনালে মাধবপুর বালিকা দল
১১৬৩৬

আনন্দের আড়ালে পরীমনির হাহাকার

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২৭ জানুয়ারি ২০২২  

গত বছরে বিয়ে হলেও ২০২২ সালে গর্ভবতী হওয়ার খবর দেন ঢাকাইয়া ছবির নায়িকা পরীমনি। ‘গুনিন’ ছবির শুটিং এ মন দেয়া-নেয়া হয় শরিফুল রাজ এবং পরীমনি। এরপরে শনিবার (২২ জানুয়ারি) রাতে হয়ে গেল জমকালো আয়োজনে রাজ-পরীর বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা। 
সাদা-হলদে ফুলে সাজানো হয়েছে বর-কনের মঞ্চ। দুজনের গায়ে ছিলো খয়েরি ও সোনালী কাপড়ের প্রচ্ছদ। অতিথির তালিকায় ছিলেন তিন নির্মাতা গিয়াস উদ্দিন সেলিম, চয়নিকা চৌধুরী ও রেদওয়ান রনি। সঙ্গে দুই পরিবারের স্বজনরা।

তবে এই আনুষ্ঠানিক বিয়েতে রাজ-পরীর একটি ছবি নিয়ে নানান আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। আর এই বিষয়টি বেশ নাড়া দিয়েছে সংগীতশিল্পী, উপস্থাপিকা ও লেখিকা সাজিয়া সুলতানা পুতুলকে। এ নিয়ে নিজের ফেসবুকে একটি পোস্ট করেন পুতুল।

পুতুল এর পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

পরীমনিকে কখনো লেখার প্রসঙ্গ হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয় নি বলে কখনো লিখি নি কিছুই। মানুষ তার স্বাধীন সত্তায় বাঁচবে এই বিশ্বাসের মানুষ আমি। মানুষের ব্যক্তিগততায় তাই কৌতূহলী হই না। কিন্তু এই ছবিটা চোখে পড়ার পর তাকিয়ে ছিলাম অনেকক্ষণ। ছবিটা যদিও একটা কৌতুকে পরিণত হয়েছে এরই মধ্যে। কিন্তু ছবির মনস্তত্ত্বটা একটু অন্যরকম। একজন নারী যখন সমাজে নিন্দিত হতে হতে অসম্মানের তলানিতে চলে যায়, অনেক কিছু সয়ে আসা একজন নারী যখন সমাজের পুরুষদের কাছ থেকে গালি ছাড়া আর কিছুই প্রত্যাশা করার সাহস হারিয়ে ফেলে, জীবনের নানান বাঁক দেখে আসা একজন নারী যখন সর্বস্তরে কৌতুকের বিষয় হয়ে যায়, তখন জীবনের বিশেষ একটা মুহূর্তে চোখে জল আসা খুব স্বাভাবিক, তা পর্দার জীবনে তিনি যতো বড় অভিনেত্রীই হোন না কেনো। এই ছবিটায় তিনি একা বসে নেই, তার ভিতরে আরেকটা প্রাণের অস্তিত্ব।

পুরুষশাসিত সমাজে নানান রঙের পুরুষের ভীড়ে সবচাইতে বিশ্বস্ত এবং নির্ভরযোগ্য মনে হওয়া পুরুষটিকে পাশে নিয়ে একটা বিশেষ মুহূর্ত উদযাপনের সময় তার মনে হয়তো যতোটা না আনন্দ ছিলো, সেরকমই ছিলো কিছু হাহাকার আর স্মৃতি রোমন্থন। সেই স্মৃতি অবশ্যই সুখস্মৃতি নয়। বিয়ের আসরে বসে অভিভাবকহীন একটা সাধারণ মেয়ের যে হাহাকার জাগতে পারে, যে মুখগুলো চোখে ভাসতে পারে, তার ক্ষেত্রেও হয়তো তা হয়েছে। এখানে তাকে আক্রমণ করার সবচেয়ে সহজ অস্ত্রটি হলো, এই অনুভূতি তো তার জীবনে প্রথম নয়। আরো একাধিকবার বিয়ের পিঁড়িতে বসার অভিজ্ঞতা তো তার আছে। কিন্তু একটা জীবন যখন কঠিন থেকে কঠিনতর হতে থাকে তখন মানুষের অনিশ্চয়তা বাড়তে বাড়তে আকাশ ছোঁয়।

সেখানে আপাতদৃষ্টিতে একটা নিশ্চিন্ত সমাধানের পথ খুঁজে পেলে সেই কান্নাটা আনন্দেরও হতে পারে। তার এই কান্না বেদনার নাকি আনন্দের তা নির্ধারণ করা সমাজের কাজ নয়। আপাতত অভিনন্দন আর শুভকামনা জানানো যেতেই পারে পরীমনিকে। যে- কাঙ্ক্ষিত ভালোবাসার খোঁজ করতে করতে জীবনটা এতোটা নাটকীয় হলো, তা এবার সত্যি হয়ে ধরা দিক।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার