• মঙ্গলবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ১২ ১৪২৮

  • || ২০ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সর্বশেষ:
শাবির প্রথম বর্ষের ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত জৈন্তাপুরে ছেলের হাতে মা খুন! বিশ্ব দরবারে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে পুলিশ : প্রধানমন্ত্রী শাবিতে ভিসি’র বাসবভনের সামনে খাটে শুয়ে অনশনের প্রস্তুতি শাবিতে আন্দোলন : ১৬ জন হাসপাতালে জেলা ভোগ্যপণ্য পরিবেশক গ্রুপের সাধারণ সভা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় সিলেটে হচ্ছে ‘ওয়াসা’
১০৮

বরিশালে বৃদ্ধার মামলা নিতে বাড়িতে হাজির বিচারক

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২৯ অক্টোবর ২০২১  

আদালতে উপস্থিত হয়ে এক অসুস্থ বৃদ্ধা মামলা করতে না পারায় বিচারক নিজেই তার (বৃদ্ধা) বাসায় গিয়ে মামলা গ্রহণ করেছেন। বৃহস্পতিবার বরিশাল নগরীর বৈদ্যপাড়ার জোড়াপুকুর এলাকার ৭৫ বয়সি জাহানুর বেগম তার দুই সন্তানের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাসুম বিল্লাহ মামলাটি গ্রহণ করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেন।

জানা গেছে, চিকিৎসার অভাবে শয্যাশায়ী জাহানুর বাধ্য হয়ে তার ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান ও মেয়ে সাবিনা আক্তারের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি ও ভরণপোষণের আবেদন করা হয়। বর্তমানে তিনি তার ছোট মেয়ে সাহিদার সঙ্গে বরিশালে বসবাস করছেন।

মামলার এজাহারে জাহানুর বেগম বলেন, খুলনায় স্বামীর বাড়িতে আমি থাকতাম। আমার চিকিৎসার খরচের জন্য খুলনার সম্পত্তি বিক্রির সিদ্ধান্ত নিই। বরিশালে ক্রেতারা এলে আমি তাদের সঙ্গে কথাও বলি। কিন্তু ২২ অক্টোবর ছেলে ও মেয়ে বরিশালে এসে আমাকে বলে তারা ওই সম্পত্তি বিক্রি করতে দেবে না। আমার চিকিৎসা খরচ ও ভরণপোষণের কথা বললে সেসবও তারা দিতে পারবে না বলে জানায়। কোনো টাকা-পয়সা দিতে পারবে না বলেও তারা স্পষ্ট জানিয়ে দেয়। এরপর আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করে তারা চলে যায়।

এখন পর্যন্ত তারা কোনো খোঁজ নেয়নি। এজাহারে বলা হয়, ২০১৪ সালের ১৪ নভেম্বর জাহানুরের স্বামী মারা যান। এরপর ব্রেন স্ট্রোক, মেরুদণ্ডে ক্ষতি এবং পিঠে ক্ষত ও প্যারালাইসিসে জাহানুর আক্রান্ত হন।

বরিশাল সমাজসেবা অধিদপ্তরের প্রবেশন অফিসার সাজ্জাদ পারভেজ বলেন, জাহানুর বেগম ‘পিতা-মাতার ভরণপোষণ আইন-২০১৩’ এর ৫ ধারা অনুযায়ী মোস্তাফিজুর রহমান ও সাবিনা আক্তারের বিরুদ্ধে ওকালতনামাসহ নালিশি দরখাস্ত বাহক দিয়ে আদালতে পাঠিয়েছেন। বাদীপক্ষের আইনজীবী ও নালিশি দরখাস্তের বাহককে জিজ্ঞাসাবাদ করে বিচারক জানতে পারেন বাদী শয্যশায়ী। এ কারণে তিনি (বৃদ্ধা) আদালতে আসতে পারেননি। তাই বাদীকে পরীক্ষা করা যায়নি। এরপর নালিশি দরখাস্তের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য বিচারক বাদীর বাসায় যান। সেখানে তিনি বাদীর জবানবন্দি রেকর্ড করেন। অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় তিনি মামলা গ্রহণ করেন এবং সমন জারি করার পাশাপাশি ১ নভেম্বরের মধ্যে আসামিদের আদালতে সশরীরে উপস্থিত হওয়ার নির্দেশ দেন।

এ জাতীয় উদ্যোগ মানুষের দোরগোড়ায় বিচার পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে যুগান্তকারী পদক্ষেপ বলে বাদীপক্ষের আইনজীবী ফজলুল হক বিশ্বাস মন্তব্য করেছেন।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার