• শনিবার   ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৩ ১৪২৮

  • || ০৯ সফর ১৪৪৩

সর্বশেষ:
দোয়ারাবাজারে বিভিন্ন কর্মসূচি পরিদর্শনে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার অবশেষে শুরু হচ্ছে সিলেটের সেই দুই সড়কের সংস্কারকাজ করোনা: ফের মৃত্যুর মিছিলে সিলেটে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের প্রথম সভাপতি ফয়জুল আর নেই

রোহিঙ্গাদের কারণে পৌনে ২ হাজার কোটি টাকার বনজ-প্রাণী সম্পদ ধ্বংস

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১  

বন্যপ্রাণীর অভ্যয়ারণ্য হিসেবে পরিচিত উখিয়ার মধুরছড়া, লম্বাশিয়া, ময়নারঘোনা, টিভি রিলে কেন্দ্র ও তাজনির মারখোলা। তবে রোহিঙ্গা বসতির কারণে এ অঞ্চলে বসবাসরত এশিয়া প্রজাতির বন্যহাতি বিলুপ্তপ্রায়। একসময় ওই অঞ্চলে আড়াইশর বেশি বন্যহাতি ছিল। কিন্তু নিরাপদ বাসস্থান হারিয়ে তারা অন্যত্রে পাড়ি জমিয়েছে। কক্সবাজারের উত্তর-দক্ষিণ বনভূমিতে ৭৮টি বন্যহাতির বিচরণ ছিল। কিন্তু এখন দৃশ্যপট বদলে গেছে। 

এদিকে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির অষ্টম সভায় উপস্থাপিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে ১১ লাখ ১৮ হাজার ৫৭৬ জন নিবন্ধিত রোহিঙ্গার জন্য নতুন-পুরাতন মিলিয়ে মোট ক্যাম্প ৩৪টি। ছয় হাজার ১৬৪ দশমিক দুই একর বনভূমি দখল করে এসব ক্যাম্প গড়ে উঠেছে। এতে নির্বিচারে বৃক্ষনিধন, ভূমিরূপ পরিবর্তন, জীববৈচিত্র্যের অবক্ষয় এবং মানুষ-বন্যপ্রাণী সংঘাত বেড়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী দ্বারা ধ্বংসপ্রাপ্ত বনজ সম্পদের ক্ষতি টাকার অঙ্কে প্রায় ৪৫৭ কোটি টাকা এবং জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি প্রায় এক হাজার ৪০৯ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। মোট ক্ষতির আনুমানিক পরিমাণ প্রায় এক হাজার ৮৬৫ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।

এখানেই শেষ নয়, ৫৮০ একর সৃজিত বন এবং ১২৫৭ একর প্রাকৃতিক বন থেকে জ্বালানি সংগ্রহে রোহিঙ্গারা বনাঞ্চল উজাড় করেছে। যার সামগ্রিক ক্ষতির পরিমাণে মোট ধ্বংসপ্রাপ্ত বনের পরিমাণ ৮০০১ দশমিক ০২ একর। আর সর্বমোট বনজদ্রব্য ও জীববৈচিত্র্যসহ ক্ষতির পরিমাণ ২ হাজার ৪২০ কোটি ৬৭ লাখ টাকা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এভাবে যদি চলতে থাকে তবে কয়েক বছরেই পাল্টে যাবে বাংলাদেশের ভূ-প্রকৃতি। পরিবেশের বিপর্যয় হবে মারাত্মকভাবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসবে ধেয়ে, মানুষের টিকে থাকাটাই হবে কষ্টসাধ্য।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার