• শনিবার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৮

  • || ২৭ রবিউস সানি ১৪৪৩

সর্বশেষ:
তাহিরপুরে শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নে নৌকার একক প্রার্থী সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের হুশিয়ারি! নিখোঁজের দু’দিন পর রোমানার লাশ মিললো নদীতে শেষ ওভারের রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ে হোয়াইটওয়াশ বাংলাদেশ পরীক্ষার্থীদের হলে পৌঁছে দিচ্ছে সিলেট জেলা ছাত্রলীগ

শ্রীমঙ্গলের জনপল সুচিয়াং, কৃষিপণ্য যার কাছে সন্তানের মতো

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২৫ নভেম্বর ২০২১  

প্রাণ-প্রকৃতি যেন আমাদের নিরীহ এক সঙ্গী। যে কিছুই নেয় না, শুধু দিতেই ভালোবাসে। এই প্রকৃতির প্রতি মানুষের ভালোবাসা বেশি না থাকলেও কিছু মানুষ তাদের মন-প্রাণ সঁপে দেয় প্রকৃতির কাছে।

যেমন সিলেট শ্রীমঙ্গলের জনপল সুচিয়াং। যিনি নিজের কৃষি জমির ফসলকে সন্তান মনে করেন। নিজের হাতে লাগানো কৃষিপণ্যকে স্বীকৃতি দিয়েছেন নিজের সন্তানের মতো। 
  
‘নিজের পান গাছগুলো বাচ্চার মতো’ -দুর্গম পাহাড়ি এলাকার অশিক্ষিত এক যুবকের মুখে এ কথার শোনোর প্রস্তুত ছিলাম না। কথাটা সরল-সহজভাবে বললেও এর অর্থটা কিন্তু গভীরতাসম্পন্ন।  

ব্যতিক্রমী উঁচু মানসিকতা আর উন্নত উপলব্ধিসম্পন্ন এ ব্যক্তির নাম জনপল সুচিয়াং। বয়স ত্রিশ-পঁয়ত্রিশের কোঠায়। যে ব্যক্তি বোধবিবেচনার মানদণ্ডে একটি বাক্য দ্বারা নিজের শাশ্বত সরলতাকে মেলে ধরেছে প্রকাশ্যে। 

শ্রীমঙ্গল উপজেলার দুর্গম পাহাড়ি জনপদ নিলারাপুঞ্জি।  এখানে বিশেষ ধরনের টিলাবাওয়া পুরনো মডেলের মিতসুবিসি গাড়ি ছাড়া যাওয়া যায় না। কিন্তু সেই গাড়িতে গেলেও শরীরের হাড়গুলো যে একটার পর একটা ঝাকুনিতে কথা বলে বলে উঠে!

সম্প্রতি জনপল সুচিয়াংদের পাহাড়ি পাড়ায় এসে দেখা গেল, তাদের বাড়িগুলো টিলার বাঁকে বাঁকে ঠাঁয় দাঁড়িয়ে আছে। এ পাড়াময় স্থান থেকে পাশে চোখ ফেরালেই দূর পাহাড় যেন হাতছানি দিয়ে ডাকে। প্রকৃতিপ্রেমীরা এখানে এসে দারুণ এক মনোমুগ্ধতায় হারিয়ে যাবেন নিমেশেই।  

জনপল বলেন, এই নিরালাপুঞ্জিতে প্রায় আড়াইশ ঘর রয়েছে। এখানের সবাই খ্রিস্ট ধর্মের অনুসারী। এখানে সবারই প্রধান এবং কারো কারো একমাত্র পেশা পান চাষ। এই পানের নাম– খাসিয়াপান। এই পুঞ্জিতে গাড়ি ছাড়াও আসা যায় না। শ্রীমঙ্গল শহর থেকে এখানে আসতে প্রায় চল্লিশ/পঞ্চাশ মিনিট লেগে যায়।  

পানের পরিপূর্ণতা এবং প্রাপ্তিতা সম্পর্কে এই পাহাড়ি পানচাষি বলেন, চারা লাগানো প্রায় তিন বছর পর গাছে পান ধরে। এর আগে ধরে না। এর মাঝে প্রতিদিন একটু একটু যত্ন তো করতেই হয়। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত পানের জমিতে কাজ চলে।

তিন জন শ্রমিক কাজ করে। তাদের আড়াইশ টাকা করে দিতে হয়।  বারোটা পানে এক ছলি। আট ছলিতে এক কান্তা। বিশ কান্তায় এক কুঁড়ি। এই এক কুঁড়ি পানের দাম বর্তমান বাজারে সাতশ টাকা থেকে আটশ টাকা। আনসিজনে (যখন মৌসুম নয়) এই দাম ডাবল হয়ে যায় বলে বিপণন প্রসঙ্গে জানান এই পাহাড়ি পানচাষি।  
 
স্ত্রীসহ মেরিন (৮) এবং দুই মেয়েকে নিয়ে টিলার ওপরের ছোট সংসার তার। ‘তিন টিলায় আমার প্রায় ছয় হাজার পানগাছ রয়েছে। সব খরচপাতি বাদ দিয়ে মাসে প্রায় আট/দশ হাজার টাকা আয় হয়ে থাকে’ বলে খাসিয়া পানচাষি বলেন।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার