• বৃহস্পতিবার   ০৪ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ১৯ ১৪২৭

  • || ২০ রজব ১৪৪২

সর্বশেষ:
স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ২৪ ঘণ্টায় আরো ৫ জনের মৃত্যু দুদকে নতুন চেয়ারম্যান ২২শ রোহিঙ্গা নিয়ে ভাসানচরের পথে ৬ জাহাজ সুরমা নদী পাড়াপাড়ে অতিরিক্ত ভাড়া, ক্ষোভ যাত্রীদের ভারতকে এক নিলেন ইনজামাম সিলেটে করোনা: কমছে মৃত্যুর সংখ্যা জকিগঞ্জ থানার নতুন ওসি কাসেম খাঁন

হেফাজত নেতা কাশেমীর মৃত্যু অনেকেই বলছে আল্লাহর গজব

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ১৩ ডিসেম্বর ২০২০  

আজ ১৩ নভেম্বর ২০২০ হেফাজত নেতা কাশেমী মারা গেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহির রাজিউন। বর্তমানে দেশের সবচেয়ে আলোচিত ইস্যু হচ্ছে ভাস্কর্য ইস্যু এবং এটা নিয়ে হেফাজতের নেতা মামুনূল  এবং অন্ন্যান্য মৌলবাদীদের ভাস্কর্যবিরোধী বিভিন্ন উস্কানীমূলক বক্তব্য।

দেশ স্বাধীন হয়েছে প্রায় ৪৯ বছর। এতো দিন ধরে কেউ কখনও ভাস্কর্য নিয়ে কোন প্রশ্ন তোলেনী হঠাৎ করেই হেফাজতের আমির শাহ আহমেদ শফীর মৃত্যুর পর হেফাজত নেতা মামুনুল চরমোনাই পীর এবং  কিছু মৌলবাদী গোষ্ঠী ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে ইসলামকে ব্যাবহার করে দেশে অস্থিতিশীল ও অরাজকতা পরিস্থিতি সৃষ্টি করার জন্য নিয়মিত সভা সমাবেশ করে বক্তব্য প্রদান করছেন। কিন্তু ইসলাম শান্তির ধর্ম ভাস্কর্য এবং অন্যের বিশ্বাসে ইসলাম আঘাতকে কখনও সমর্থন করেনা। তাই যদি হতো তাহলে হযরত ওমরের শাসনামলে যখন মুসলমানরা মিশর দখল করে নেয় তখন তারা অবশ্যেই পিরামিড এবং স্ফিংস এর মুর্তি সহ সব মূর্তি ভেঙ্গে ফেলতো। কিন্তু সেগুলি বহাল তবিয়তে ৪০০০ বছর ধরেই টিকে রয়েছে এ থেকেই বোঝা যায় ভাস্কর্য ভাঙ্গা ইসলাম সমর্থন করেনা। 

এই মৌলবাদীরাই নানা সময় নানা ধরণের ফতোয়া জারি করে দেশকে পিছিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছে এবং নিজেদের আখের গোছানোর চেষ্টা করে চলেছে ক্রমাগত। এরাই কিন্তু একসময় বলতো ইংরেজী শেখা হারাম, টিভি দেখা হারাম, নারী নেতৃত্ব হারাম, পুরুষ ডাক্তার হারাম, নারী নার্স হামলা আরও যে কত কি বলে শেষ করা যাবেনা।

স্বাধীনতার পর থেকেই হেফাজত নানা সরকারের সাথে সমঝোতা করে চেষ্টা করে আসছিল যাতে করে তাদের কওমী মাদ্রাসাগুলিকে এমপিও ভুক্ত করা হয় কোন সরকারই তা করেনি এবার আওয়ামিলীগ সরকার তা করেছে। কিন্তু এখন তারাই সরকার ও জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে নিজেদের কায়েমী স্বার্থ হাসিল করার  জন্য বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের উপর তাদের ফতোয়া জারি করে বলছে যে সেগুলিকে বুড়িগঙ্গায় ভাসিয়ে দেয়া হবে মূলত এই বক্তব্যের মাধ্যমে তারা স্বাধীনতার চেতনায় আঘাত হেনেছে। এরাই মূলত যুদ্ধের সময় পাক্তিস্তানীদের সঙ্গী হয়ে তখন ফতোয় জারি করেছিল বাংলা বলা হারাম বাঙ্গালী নারীদের ধর্ষণ করা জায়েজ ইত্যাদি। মূলত এরাই নব্য রাজাকার। 
 আল্লামা কাশেমী সহ হেফাজতের অন্য নেতারা মামুনুলের বক্তব্যের বিরোধীতা না করায় তাকে নীরব সমর্থন দেওয়ায় অনেকেই বলছে হেফাজত অকৃতজ্ঞ বলেই হেফাজত ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা থেকে দুরে সরে যাওয়ার কারণেই তাদের উপর আল্লাহর গজব নাজিল হয়েছে এবং এটা শুরু হলো আল্লামা কাশেমীর মৃত্যুর মধ্যদিয়ে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার