বৃহস্পতিবার   ১৭ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ২ ১৪২৬   ১৭ সফর ১৪৪১

সর্বশেষ:
অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে অ্যাকশনে পুলিশ সিলেটে ছিনতাই করে ঢাকায় পালিয়ে গিয়েও রক্ষা হলনা কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’র উদ্বোধন আজ সড়ক ব্যবহারে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
২১০

সুরমা নদীতে সেতুর অভাবে অর্ধ লক্ষাধিক মানুষের ভোগান্তি 

গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

সকাল তখন সাড়ে ৯টা। খেয়া ঘাটে রয়েছে একটি ছোট নৌকা। নৌকাটিতে জড়োসড়ো হয়ে বসে রয়েছে কয়েকজন স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থী। একটু পর আরো কয়েকজন শিক্ষার্থী নৌকায় উঠলো। নৌকা পূর্ণ হয়ে গেছে মাঝি এমনটি বলার পরও কয়েকজন শিক্ষার্থী জোর করেই নৌকায় উঠে গেল। অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে মাঝিকে ছাড়তে হলো নৌকা। বৃহস্পতিবার গোলাপগঞ্জ উপজেলার সুরমা নদীর বাঘা লাল নগর খেয়াঘাটে দেখা গেল এ দৃশ্য।

গোলাপগঞ্জ উপজেলার সবচেয়ে বড় ইউনিয়ন বাঘা। এ ইউনিয়নটিকে উপজেলা সদর থেকে ভাগ করে রেখেছে সুরমা নদী। বাঘাবাসী দীর্ঘদিন থেকে সুরমা নদীতে একটি সেতু নির্মাণের দাবি করে আসলেও এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। ফলে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এই এলাকার অর্ধ লক্ষাধিক মানুষকে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বাঘা ইউনিয়নের ২৫টি গ্রামের মোট জনসংখ্যা প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক। তাদের উপজেলা সদরে আসার একমাত্র ভরসা হচ্ছে নৌকা। এ ইউনিয়নের লোকজন সড়ক পথে বাঘা থেকে উপজেলা সদরে আসতে হলে সিলেট শহর হয়ে ২০ কিলোমিটার ঘুরে আসতে হয়। 

গোলাপগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী বাঘা কালাকোনা গ্রামের এম, এ, জি মস্তফা বলেন, সুরমা নদীতে একটি সেতু আমাদের অনেক দিনের দাবি। সেতুর অভাবে হাজার হাজার মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। 

বাঘা তুরুগাঁও গ্রামের রব্বানি আহমদ জানান, সুরমা নদীতে সেতু নির্মাণ হলে বাঘা ইউনিয়নের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটবে। যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হওয়ার পাশাপাশি জীবন মানেরও অনেক পরিবর্তন হবে।

গোলাপগঞ্জ সরকারি এমসি একাডেমীর দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী কিবরিয়া আহমদ জানান, খেয়াঘাটে একটিমাত্র নৌকা থাকায় কলেজে যেতে অনেক অপেক্ষা করতে হয়। অনেক সময় নৌকার জন্য কলেজে যেতে দেরি হয়ে যায়।

লালনগর খেয়াঘাটের মাঝি চুনু মিয়া জানান, প্রতিদিন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ীসহ হাজারো মানুষ খেয়াঘাটে নৌকায় পারাপার হন। অনেক সময় অধিক যাত্রী ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করাতে হয়।

গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম জানান, উন্নয়নের প্রথম ধাপ হচ্ছে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন। উপজেলার কুশিয়ারা নদীতে ইতিমধ্যে একটি সেতু নির্মাণ হলেও সুরমা নদীতে এখনো কোনো সেতু নির্মাণ হয়নি। সুরমা নদীতে সেতু নির্মাণ এখন সময়ের দাবি। এখানে সেতু নির্মিত হলে কানাইঘাট উপজেলার সাথে আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হবে। এতে করে বাঘাবাসীসহ গোলাপগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ীদের ব্যবসার অনেক ক্ষেত্র সৃষ্টি হবে। তিনি গোলাপগঞ্জবাসীর প্রাণের দাবি সুরমা নদীতে সেতু নির্মাণে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের প্রতি জোর দাবি জানান।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার