বুধবার   ১১ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৭ ১৪২৬   ১৩ রবিউস সানি ১৪৪১

সর্বশেষ:
বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী গোয়াইনঘাট-জৈন্তাপুরে ফসলের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে দলে এখনো ‘মোশতাকদের’ পদচারণ রয়েছে: এম এ মান্নান সিলেটে বাল্যবিবাহ শূন্যের কোটায় নামাতে কাজ করছেন জেলা প্রশাসক সুনামগঞ্জে কোটি কোটি টাকার কাজে অনিয়ম পথচারীকে বাঁচাতে গিয়ে গুরুতর আহত পুলিশ সদস্য  ওলি-গলিতে গড়ে উঠেছে ভাঙ্গারী ব্যবসা, বাড়ছে চুরি সাতছড়ি উদ্যানে ফটোগ্রাফিক সোসাইটির বৃক্ষরোপন অভিযান
৬২

সিলেটে ফুরফুরে মেজাজে আওয়ামী লীগ

সিলেট প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৭ নভেম্বর ২০১৯  

 


আগামী ৪ ও  ৫ ডিসেম্বর সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীরা ফুরফুরে মেজাজে রয়েছেন। দীর্ঘ ৮ বছর পর সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে, নতুন নেতৃত্ব আসবে। এমন প্রত্যাশায় কাজ করছেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা। এমনকি নিজের পছন্দের প্রার্থীকে বিজয়ী করাতে কাউন্সিলরদের কাছে ধরণা দিচ্ছেন। রাতদিন সমানতালে কাজ করছেন।

সম্মেলনকে সামনে রেখে সিলেট নগরীতে সাজসাজ বর পড়েছে। নগরীর প্রতিটি মোড়ে বিলবোর্ড, ব্যানার, ফেস্টুন শোভা পাচ্ছে। সকল স্তরের নেতাকর্মীরা তাদের আইডল, তাদের নেতার পক্ষে সমর্থন জানাতে বিলবোর্ড ফেষ্টুন লাগিয়ে দিয়েছেন।

দীর্ঘ আট বছরেও নিজেদের আওতাধীন সব উপজেলা ও ওয়ার্ড শাখার সম্মেলন করে কমিটি দিতে পারেনি সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ। অবশেষে কেন্দ্রের কঠোর বার্তা পেয়ে নড়েচড়ে বসেছেন সিলেট আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতারা। সম্মেলন নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যাপক তোড়জোড়।

অন্যদিকে উভয় শাখার আওতাধীন উপজেলা ও ওয়ার্ডগুলোতেও সম্মেলনে প্রায় শেষ পর্যায়ে। দুই একটি উপজেলা ছাড়া বাকী প্রায় সব উপজেলায় সম্মেলন শেষ। পূর্ণাঙ্গ কমিটিও গঠন করা হবে সম্মেলনের পূর্বে। এ নিয়ে উপজেলা নেতাকর্মীরাও আনন্দ উল্লাসে রয়েছেন। বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় তৃণমুল নেতাকর্মীরা জেলা পর্যায়ে নেতা নির্বাচন করবেন। এমন খুশিতে মাতোয়ারা তৃণমূল।

সিলেট আওয়ামী লীগে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি হয়েছিল ২০০৫ সালে। এরপর ২০১১ সালে সম্মেলন ছাড়াই গঠিত হয় কমিটি। তিন বছর মেয়াদি সে কমিটি ইতোমধ্যে পার করে দিয়েছে আট বছর। এ দীর্ঘ সময়ে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ নিজেদের আওতাধীন ১৩টি উপজেলার মধ্যে মাত্র ৬টিতে আংশিক কমিটি করতে পেরেছে। আর মহানগর আওয়ামী লীগ ২৭টি ওয়ার্ডের মধ্যে কমিটি করেছে ২১টিতে।

এত সময় পেয়েও সম্মেলন কিংবা কমিটি করতে না পারায় সিলেট আওয়ামী লীগ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। পরে সিলেটে এসে তারা ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে সব শাখার সম্মেলন করতে কঠোর নির্দেশ দিয়ে যান দায়িত্বশীলদের। এরপরই নড়েচড়ে বসেন সিলেট আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা।

জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক জগলু চৌধুরী বলেন, আওয়ামীলীগের প্রান হচ্ছে তৃনমুল,তৃনমুলে এখন উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।গ্রাম থেকে শহর পর্যন্ত এর ছোয়া লেগেছে।আগামী সম্মেলনকে সামনে রেখে প্রত্যেক স্তরের নেতা কর্মীরা এখন মাঠে। বাংলাদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার ভিশন বাস্তবায়ন এবং দলকে আরো সুসংগঠিত করাই হচ্ছে মুল কাজ।প্রত্যেকটি স্তরে যে ভাবে সংগঠনের নতুন নেতৃত্ব বেরিয়ে এসেছে এই নেতৃক্বের মাধ্যমে দল আরো সুসংগঠিত হবে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার