মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ২ ১৪২৬   ১৭ মুহররম ১৪৪১

সর্বশেষ:
মেট্রোরেলের জন্য পুলিশের আলাদা ইউনিট গঠনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর সিলেটে ঝাড়ু হাতে ৩ ব্রিটিশ এমপি হাওরাঞ্চলে বর্গা যাচ্ছে না জমি আমি অনুতপ্ত, ক্ষমাপ্রার্থী: রাব্বানী টি-টোয়েন্টি দলে বড় রদবদল প্রবাসীদের এনআইডি পেতে সহায়তা করবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ন্যায্যমূল্যে খোলা বাজারে টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি শুরু সোমবার ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি ফেরাতে চান নতুন নেতারা
৬২

সিলেটের কৃতি সন্তান সালমান শাহ’র মৃত্যুবার্ষিকী আজ

সিলেট প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের রুপালি পর্দার নব্বই দশকের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ও সুদর্শন নায়ক সালমান শাহ। আজ শুক্রবার তার ২৩তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ১১/বি, নিউ ইস্কাটন রোডের ইস্কাটন প্লাজার বাসার নিজ কক্ষে সালমান শাহকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। সালমান শাহ আসল নাম শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন।

সোহানুর রহমান সোহানের হাত ধরে কেয়ামত থেকে কেয়ামত সিনেমার মাধ্যমে চলচ্চিত্র জগতে পদার্পণ করেন তিনি। প্রথম ছবিতেই দর্শকের মনে জায়গা করে নেন সালমান শাহ।

১৯৯৩ সালে সোহানুর রহমান সোহান ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ ছবির মাধ্যমে দুই নতুন মুখ সালমান শাহ ও মৌসুমীকে উপহার দেন। ছবিটি বলিউডের ‘কেয়ামত ছে কেয়ামত তাক’ ছবির বাংলাদেশি ভার্সন।
এরপর সালমানের সঙ্গে মৌসুমীকে দেখা যায় ১৯৯৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘অন্তরে অন্তরে ও ‘স্নেহ’ ছবিতে। ১৯৯৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সর্বশেষ ‘দেনমোহর’ ছবিতে সালমানের বিপরীতে মৌসুমীকে দেখা গেছে। তাদের মধ্যে ভালো বন্ধুত্বও ছিল। কিন্তু কোনো এক অজানা কারণে মৌসুমীর সঙ্গে আর সালমানকে দেখা যায়নি।
ঢাকাই সিনেমার অন্যতম সফল জুটি সালমান শাহ ও শাবনূর। প্রয়াত চিত্রপরিচালক জহিরুল হক ১৯৯৪ সালে সালমানের সঙ্গে শাবনূরকে নিয়ে নির্মাণ করেন ‘শুধু তুমি’। এ ছবির সাফল্যের পর শাবনূরের সঙ্গে সালমানের জুটি হয়ে যায় চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের মতো। এরপর সালমানের বিপরীতে শাবনূর অভিনয় করেন ‘সুজন সখী’, ‘বিক্ষোভ’, ‘স্বপ্নের ঠিকানা’, ‘মহামিলন’, ‘বিচার হবে’, ‘তোমাকে চাই’, ‘স্বপ্নের পৃথিবী’, ‘জীবন সংসার’, ‘চাওয়া থেকে পাওয়া’, ‘প্রেম পিয়াসী’, ‘স্বপ্নের নায়ক’, ‘আনন্দ অশ্রু, ‘বুকের ভিতর আগুন’ ছবিতে। সালমানের জীবনের শেষ ছবিও ছিল শাবনূরের সঙ্গে।

এ নায়কের মৃত্যুর পর আর কারও সঙ্গেই যুৎসই জুটি গড়ে ওঠেনি শাবনূরের। মৃত্যুর আগে সালমানের সঙ্গে শাবনূরকে নিয়ে শুটিং চলছিল এবং তারা চুক্তিবদ্ধ ছিলেন ‘নয়নমণি’, ‘তুমি শুধু তুমি’, ‘মন মানে না’, ‘কুলি’, ‘অধিকার চাই’, ‘মধু মিলন’, ‘কে অপরাধী’, ‘শেষ ঠিকানা’ ছবিগুলোর। সালমানের মৃত্যুর পর এসব ছবিতে রিয়াজ, ওমর সানী, অমিত হাসানকে দেখা যায়।

১৯৯৪ সালের শেষর দিকে নির্মিত জীবন রহমান পরিচালিত ‘প্রেম যুদ্ধ’ ছবিতে সালমানের বিপরীতে অভিনয় করেন লিমা। পরের বছর দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর ‘কন্যাদান’ ছবিতেও দেখা যায় এই জুটিকে।
চিত্রনায়ক নাঈমের সঙ্গেই ছিল শাবনাজের জুটি। কিন্তু ১৯৯৫ সালে হাফিজউদ্দিন ‘আঞ্জুমান’ ছবিতে সালমানের বিপরীতে শাবনাজকে কাস্ট করেন। ফলাফল, সুপারহিট। পরবর্তীতে ‘আশা ভালোবাস’ ও ‘মায়ের অধিকার’ ছবিতেও সালমানের বিপরীতে শাবনাজকে দেখা গেছে।

১৯৯৬ সালে মালেক আফসারী পরিচালিত ‘এই ঘর এই সংসার’ ছবিতে সালমানের বিপরীতে অভিনয় করেন নবাগতা বৃষ্টি। এটিই ছিল এ নায়িকার প্রথম ও শেষ ছবি। রানা নাসের পরিচালিত ‘প্রিয়জন’ ছবিতে সালমানের বিপরীতে অভিনয় করেন শিল্পী। ছবিটি মুক্তি পায় ১৯৯৬ সালে। এ ছবিতে চিত্রনায়ক রিয়াজকেও দেখা গেছে।

ছটকু আহমেদের পরিচালনায় ‘সত্যের মৃত্যু নেই’ ছবিতে সালমানের বিপরীতে অভিনয় করেন শাহনাজ। ১৯৯৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এ ছবিটি সালমানের ক্যারিয়ারের একটি টার্নিং পয়েন্ট ছিল। কাজী মোর্শেদের পরিচালনায় ‘শুধু তুমি’ ছবিতে সালমানের বিপরীতে অভিনয় করেন শ্যামা।

এ ছাড়া ‘সত্যের মৃত্যু নেই’ ছবিতে শাবনাজের পাশাপাশি সহনায়িকা হিসেবে সাবরিনা ও ‘আনন্দ অশ্রু’ ছবিতে শাবনূরের পাশাপাশি সহনায়িকা হিসেবে কাঞ্চিকেও দেখা গেছে
 

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর