• সোমবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১২ ১৪২৭

  • || ১০ সফর ১৪৪২

সর্বশেষ:
সবগুলো নদী খনন করে বাঁধ নির্মাণ করা হবে: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী ঢলে সুনামগঞ্জ-বিশ্বম্ভরপুর-তাহিরপুরের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ইউক্রেনে সামরিক বিমান বিধ্বস্ত হয়ে নিহত ২২
৩২

লোভাছড়ায় জব্দ করা সেই ৫০ কোটি টাকার পাথরের কি হচ্ছে!

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২৪ আগস্ট ২০২০  

সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার লোভাছড়ায় জব্দ করা ‘সাদা সোনার স্তুপ’ তিন দফা নিলামে উঠলেও রহস্যময় কারণে শেষ পর্যন্ত বিক্রি হয়নি। এক মাসের অধিক সময় ধরে অরক্ষিত পড়ে থাকার পর গত কয়েকদিন থেকে সেই ৫০ কোটি টাকার বেশি মূল্যের পাথর সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন স্থানীয় কয়েকজন ব্যবসায়ী। এতে বাঁধাও দিচ্ছে না পরিবেশ অধিদপ্তর, বরং দিচ্ছে দায়সারা জবাব।

গত ১৫ ও ১৬ জুলাই পরিবেশ অধিদপ্তর অভিযান চালায় কানাইঘাটের লোভাছড়া পাথর কোয়ারি ও আশপাশ এলাকায়। এসময় নদীর তীরে মজুদ করে রাখা প্রায় এক কোটি ঘনফুট পাথর জব্দ করা হয়। অভিযানকালে মজুদকৃত পাথরের কোনো মালিক খুঁজে পাওয়া যায়নি বলে জানায় পরিবেশ অধিদপ্তর।

জব্দকৃত সেই পাথর নিলামে বিক্রির জন্য দরপত্র আহ্বান করে পরে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। দরপত্র জমার শেষ এবং নিলামের তারিখ নির্ধারণ করা হয় ২১ জুলাই। কিন্তু রহস্যময় কারণে উপযুক্ত মূল্য না পাওয়ার অজুহাতে ওই পাথরগুলো বিক্রি না করে পুনরায় নিলাম আহবান করা হয়। 

পরে ২৩ জুলাই জব্দকৃত সোনারূপী সেই ১ কোটি ঘনফুট পাথরের বাজারদর অনুযায়ী মূল্য পেতে প্রকাশ্য পদ্ধতিতে পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ে এ নিলাম অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু সেদিনও ‘উপযুক্ত দাম’ উঠেনি সেই পাথরের। পরবর্তীতে আরেক দফা নিলাম হলেও বিক্রি হয়নি সেই ‘সাদা সোনার স্তুপ’।

এদিকে, গত ৪ দিন ঘরে ৫০ কোটি টাকার বেশি মূল্যের সেই পাথর স্থানীয় কয়েকজন ব্যবসায়ী সুরমা নদী দিয়ে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে। অথচ পরিবেশ অধিদপ্তর কার্যকর কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না।

পাথর সরানো ব্যবসায়ীরা দাবি করছেন- উচ্চ আদালতের নির্দেশে তারা পাথর নিয়ে যাচ্ছেন। কারণ- এই পাথরগুলো তাদেরই ক্রয় করা পাথর। তবে পরিবেশ অধিদপ্তর বলছে- এভাবে পাথর সরনো অবৈধ।

এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় পরিচালক মোহাম্মদ এমরান হোসেন আজ সোমবার বলেন, উচ্চআদালতের নির্দেশনা অমান্য করে স্থানীয় কয়েকজন পাথর ব্যবসায়ী পুলিশ প্রশাসনকে একটি ‘উকিলপত্র’  দেখিয়ে পাথরগুলো সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। অথচ পাথর পরিবহনের মালিকানার কাগজপত্র ও ডকুমেন্ট দেয়ার জন্য গত ২০ আগস্ট তাদেরকে চিঠি দেয়া হয়েছে। তারপরও তারা পাথরের মালিকানার কাগজপত্র না দিয়ে আমাদের অনুমতি ছাড়া জব্দকৃত পাথর সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, আমরা শীঘ্রই এ স্থানে অভিযান পরিচালনা করবো।
 

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার
সিলেট বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর