• শুক্রবার   ১৫ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ২ ১৪২৭

  • || ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
আবারও বাড়ল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি, বন্ধ থাকবে ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত নির্বাচনে সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করবে না: কাদের করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমেছে সিলেটের ৭ পৌরসভায় ৪ স্তরের নিরাপত্তা বলয় সিলেটে ৪ ইটভাটাসহ ৬ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ইন্দোনেশিয়ায় শক্তিশালী ভূমিকম্প, নিহত বেড়ে ৩৬ সিলেটে বিনামূল্যে ‘ওয়াইফাই’, মিলছে না সেবা

মেসেঞ্জারে বিভ্রাট মানে দুনিয়া অচল?

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২২ ডিসেম্বর ২০২০  

বিশ্বজুড়ে মেসেঞ্জারের জনপ্রিয়তা কত সেটি আরও একবার বোঝা গেল। গত ১০ ডিসেম্বর হঠাৎ করে মেসেঞ্জারে বিভ্রাট শুরু হয়। এ কারণে অনেক ব্যবহারকারী মেসেজ-আদান প্রদান করতে পারেননি। কেউ কেউ মেসেজ আদান-প্রদান করতে পারলেও এর গতি ছিল অনেক কম।

বিভ্রাটের কারণে মেসেঞ্জার অ্যাপে প্রবেশ করতেই দেখায় ‘ওয়েটিং ফর নেটওয়ার্ক’। এই পরিস্থিতিতে বিভ্রাটের বিষয়টি বুঝতে না পেরে অনেকে ভেবেছেন নিজের ইন্টারনেট সংযোগে সমস্যা হয়েছে। ফলে ইন্টারনেট সংযোগ ঠিক করতে অনেকটা সময় ব্যয় করেছেন কেউ কেউ।

বিশ্বজুড়ে মেসেঞ্জার বিভ্রাটের কিছুক্ষণের মধ্যেই হাজার হাজার ব্যবহারকারী এটি নিয়ে অভিযোগ শুরু করেন। সময়ের সঙ্গে অভিযোগকারীর সংখ্যা বাড়তে থাকে পাল্লা দিয়ে। এসব ঘটনা থেকেই বোঝা যায় ব্যবহারকারীরা কতটা মেসেঞ্জারের ওপর নির্ভরশীল।

এক মুহূর্ত মেসেঞ্জার না থাকলে অনেকের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। ফেসবুকের মালিকানাধীন আরেক ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম হোয়াটসঅ্যাপের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। অনেক ব্যবহারকারী এই দুটি প্ল্যাটফর্ম ছাড়া তাদের যোগাযোগের বিষয়টি কল্পনাই করতে পারেন না।

তবে এগুলোর বিকল্প যে নেই তা নয়। মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপের বিকল্প হতে পারে গুগলের মেসেজিং সেবা, ভাইবারসহ আরও অনেক অ্যাপ। এক্ষেত্রে মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপের বিকল্প হিসেবে অন্য অ্যাপ ব্যবহারের অভ্যাস গড়ে তোলা যেতে পারে। তাহলে ফেসবুকের মালিকানাধীন দুটি অ্যাপের ওপর থেকে নির্ভরতাও কমে আসবে। মেসেঞ্জারে বিভ্রাট মানে দুনিয়া অচল এমনটা আর মনে হবে না।

এ বিষয়ে প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা বলছেন, যোগাযোগ স্থাপনের জন্য দুই পক্ষেরই একই অ্যাপ ব্যবহারের প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে একজনের ভাইবার অ্যাপ থাকলেও অন্যদের না থাকলে যোগাযোগ করা সম্ভব হবে না। ফলে হোয়াটসঅ্যাপ ও মেসেঞ্জার নির্ভরতা কমাতে হলে সবাইকেই বিকল্প কিছু বেছে নিতে হবে। মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারে সবাই অভ্যস্ত হয়ে গেছে বলে এগুলো ছাড়া যোগাযোগ কঠিন। তবে অন্য যে কোনও অ্যাপ ব্যবহারে অভ্যস্ততা আনা গেলে মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপ নির্ভরতা কমে আসবে।

গত ১০ ডিসেম্বর ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইনডিপেনডেন্ট জানায়, বিশ্বজুড়ে চলছে মেসেঞ্জার বিভ্রাট। মেসেঞ্জারে এমন এক সময়ে বিভ্রাট শুরু হলো যখন ফেসবুকের মালিকানাধীন আরেক প্রতিষ্ঠান ইনস্টাগ্রামের নিজস্ব মেসেজ সার্ভিসেও একই ধরনের সমস্যা চলছে।

একই দিনে বিজনেস ইনসাইডার ইন্ডিয়া তাদের প্রতিবেদনে জানায়, বিশ্বজুড়ে বিভ্রাটের কারণে মেসেঞ্জারে নতুন কোনও মেসেজ আসছে না। ইনস্টাগ্রামের ডিরেক্ট মেসেজেও একই সমস্যা চলছে। এছাড়া বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ইনস্টাগ্রামের স্টোরি লোড হচ্ছে না।

বিভ্রাট শুরু হওয়ার পর পরই ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য সান ফেসবুকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি জানায়, আমরা সবকিছু স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। দ্রুততম সময়ের মধ্যে সবকিছু স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে।

পরবর্তীতে অন্য এক বিবৃতিতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানায়, মেসেঞ্জার ও ইনস্টাগ্রামে মেসেজ আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে সমস্যার মুখে পড়েছিলেন কিছু ব্যবহারকারী। এরই মধ্যে সমস্যাটির সমাধান করা হয়েছে। আমরা এই বিভ্রাটের জন্য ক্ষমাপ্রার্থী।

মেসেঞ্জারপিপল ডট কম ও স্ট্যাটিসটা ডট কম জানাচ্ছে (অক্টোবর-২০২০ পর্যন্ত), বিশ্বে জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ হলো হোয়াটসঅ্যাপ, যার ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২০০ কোটি (বাংলাদেশে ৩ কোটির বেশি)। এর কাছাকাছি সংখ্যা হলো ফেসবুক মেসেঞ্জার। এর ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৩০ কোটি। চীনের জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ হলো উইচ্যাট। বিশ্বে উইচ্যাটের ব্যবহারকারী ১২০ কোটি। এরপরে ১০০ কোটি ব্যবহারকারী নিয়ে অবস্থান করছে ইনস্টাগ্রাম। চীনের কিউকিউ ব্যবহারকারীও একেবারে কম নয়, ৭৩ লাখ ১০ হাজার। স্ন্যাপচ্যাট ও টেলিগ্রামের ব্যবহারকারী যথাক্রমে ৪৩ লাখ ৩০ হাজার এবং ৪০ লাখ। ওপরে উল্লেখিত জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপগুলোর পাশাপাশি ওয়েবএফএক্স ডট কম বলছে, স্কাইপ, কিক ও লাইনও এখন বেশ জনপ্রিয়। ভাইবারও পিছিয়ে নেই। বাংলাদেশেই রয়েছে প্রায় ২ কোটির মতো গ্রাহক। ব্যবহারকারীদের অ্যাপ ব্যবহার ও নির্ভরতা কমাতে অন্যান্য অ্যাপ ব্যবহারের প্রতি মনোযোগী হলে মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপের ওপর নির্ভরতা কমবে। এই দুটিতে বিভ্রাট হলেও ব্যবহারকারীরা কোনও সমস্যায় পড়বেন না।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার