মঙ্গলবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১৪ ১৪২৬   ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

সর্বশেষ:
সিলেটে সরস্বতী পূজা উদযাপনে এসএমপির আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভা বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হলো বাংলাদেশ-পাকিস্তানের শেষ ম্যাচ করোনাভাইরাস: সারাদেশে আইসোলেশন ইউনিট খোলার নির্দেশ ভূকম্পে কেঁপে উঠলো সিলেট ৩ দিনে ই-পাসপোর্টের জন্য ২ হাজার আবেদন
১৩৮

মিয়ানমারকে আন্তর্জাতিকভাবে বর্জনের ডাক মানবাধিকার সংগঠনগুলোর

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ১০ ডিসেম্বর ২০১৯  

 


মিয়ানমারকে আন্তর্জাতিকভাবে বর্জনের ডাক দিয়েছে ১০টি দেশের মানবাধিকার, শিক্ষাবিদ এবং পেশাদারদের ৩০টি সংগঠন। সোমবার মিয়ানমারকে বর্জনের ডাক দিয়ে লন্ডন থেকে ‘বয়কট মিয়ানমার ক্যাম্পেইন’ শুরু করেছে তারা।

তুর্কি সংবাদমাধ্যম আনাদুলো এজেন্সি এক প্রতিবেদনে জানায়, মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় প্রতিনিধি অং সান সু চি রোহিঙ্গাদের ওপর অত্যাচারের বিষয়টি নিয়ে নিজ দেশের পক্ষে সাফাই গাইতে আন্তর্জাতিক আদালতে গেছেন। তার আগে মিয়ানমারকে আন্তর্জাতিকভাবে বর্জনের ডাক উঠেছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সু চি যখন হেগ-এ অবস্থান করছেন, তখন জার্মানিভিত্তিক ফ্রি রোহিঙ্গা কোয়ালিশন নামের প্ল্যাটফর্ম থেকে ‘বয়কট মিয়ানমার ক্যাম্পেইন’ শুরু করা হয়েছে।

সংগঠনটির বিবৃতিতে বলা হয়, গণহত্যা মামলার শুনানিকে সামনে রেখে মানবাধিকার, শিক্ষাবিদ এবং পেশাদারদের ৩০টি সংগঠন মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক, কূটনৈতিক ও রাজনৈতিক চাপ বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে। এর সঙ্গে রেস্টলেস বিংস, ডেস্টিনেশন জাস্টিস, রোহিঙ্গা হিউম্যান রাইটস নেটওয়ার্ক অব কানাডা, রোহিঙ্গা হিউম্যান রাইটস ইনিশিয়েটিভ অব ইন্ডিয়া ও এশিয়া সেন্টারের মতো সংগঠনগুলো যুক্ত রয়েছে।

জার্মানিভিত্তিক ফ্রি রোহিঙ্গা কোয়ালিশনের সহ-প্রতিষ্ঠাতা এবং ‘গ্লোবাল বয়কট মুভমেন্ট’ এর অন্যতম উদ্যোক্তা নে সাং লুইন ওই বিবৃতিতে বলেন, জাতিসংঘের তথ্য অনুসন্ধান মিশনে উঠে এসেছে যে- রোহিঙ্গা নৃগোষ্ঠীকে পরিকল্পিতভাবে ধ্বংস করে দেয়ার নীতি গ্রহণ করেছে মিয়ানমার। আমরা দেশটির সেনাবাহিনীর অধীনে ১৫ বছর গৃহবন্দি থাকা অং সান সু চির মুক্তির আন্দোলন করে এসেছি। তবে তিনি সেই অবস্থা থেকে মুক্তি পাওয়ার পর শুধু সেনাবাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে চলছেন। এজন্য আমরা মিয়ানমারের সঙ্গে প্রাতিষ্ঠানিক ও আনুষ্ঠানিক সব সম্পর্ক ছিন্ন করতে সবার প্রতি আহ্বান জানাই।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বিশাল সামরিক অভিযান চালায় দেশটির সেনাবাহিনী। এতে প্রায় ৭ লাখ ৫০ হাজার রোহিঙ্গা ওই রাজ্য থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। মূলত এই অভিযান নিয়েই ১০ থেকে ১২ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক আদালতের শুনানিতে অংশ নেবেন সু চি।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর