বৃহস্পতিবার   ১৭ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ২ ১৪২৬   ১৭ সফর ১৪৪১

সর্বশেষ:
অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে অ্যাকশনে পুলিশ সিলেটে ছিনতাই করে ঢাকায় পালিয়ে গিয়েও রক্ষা হলনা কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’র উদ্বোধন আজ সড়ক ব্যবহারে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
৭০

বিয়ানীবাজারে ব্যাংকের ছড়াছড়ি

সিলেট (বিয়ানীবাজার) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২৫ জুলাই ২০১৯  

আয়তন মোটে ১৮.১৭ বর্গকিলোমিটার। ছোট্ট আয়তনের এ শহরে ব্যাংকের যেনো ছড়াছড়ি। সিলেটের প্রবাসী অধ্যুষিত বিয়ানীবাজার পৌরশহরে রাষ্ট্রায়ত্ত ও বাণিজ্যিক ব্যাংক মিলিয়ে ৩০টি ব্যাংকের ৪৪টি শাখা রয়েছে। ব্যাংকার, ব্যাংকের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও ব্যবসায়ীরা বিয়ানীবাজারকে ব্যাংকের শহর বলে দাবি করেছেন। তাদের মতে, উপজেলা পর্যায়ে দেশের কোথাও ব্যাংকের আর এত শাখা নেই। 

বিয়ানীবাজার উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষের বসবাস। প্রবাসী অধ্যুসিত উপজেলায় ১৯৬৭ সালে পাকিস্তান ন্যাশনাল ব্যাংকের আগমনের মাধ্যমে ব্যাংকের যাত্রা শুরু হয়। প্রবাসী উপজেলা হওয়ায় খুব সহজে ও স্বল্প সময়ে ব্যাংকটি একটি অবস্থান তৈরি করে নেয়। দেশ স্বাধীন হলে পাকিস্তান ন্যাশনাল ব্যাংক রূপান্তরিত হয় সোনালী ব্যাংকে। ১৯৭৪ সালে প্রথম বাণিজ্যিক ব্যাংকের আধুনিক সুযোগ সুবিধা নিয়ে বিয়ানীবাজার শাখা খুলে পূবালী ব্যাংক লিমিটেড। বর্তমানে রাষ্ট্রয়াত্ত সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক ও কৃষি ব্যাংকসহ ৩০টি ব্যাংকের ৪৪টি শাখা রয়েছে।

বিয়ানীবাজারের ব্যাংকের শহরে পরিণত হওয়ার পেছনে রয়েছে প্রবাসী রেমিটেন্সের অবদান রয়েছে। প্রবাসীরা বছরে হাজার কোটি টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে দেশে পাঠান। প্রবাসীদের রেমিটেন্সের উপর নির্ভর করে ব্যাংকগুলো তাদের প্রচার ও প্রসার বৃদ্ধি করছে। সমৃদ্ধ করছে ব্যাংকের পুঁজি।

বিয়ানীবাজার পৌরশহরের ব্যবসায়ী মোসলেহ উদ্দিন খান বলেন, চা শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট থাকায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাওয়ার সুযোগ হয়েছে। উপজেলা পর্যায়ে বিয়ানীবাজার ছাড়া অন্য কোথায় এতো ব্যাংক ও তাদের শাখা চোখে পড়েনি।

ব্যাংক কার্যক্রমে বিয়ানীবাজার সকল ক্ষেত্রে নিরাপদ জানিয়ে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক নবেল গাঙ্গুলি বলেন, যে অঞ্চল বা এলাকায় মুনাফার সম্ভাবনা কম, সেখানে ব্যাংকের বিনিয়োগ বা বিচরণও কম থাকে। বাণিজ্যিক ও শিল্প এলাকা না হলেও বিয়ানীবাজারের বিশাল জনগোষ্ঠী প্রবাসে জীবনযাপন করছেন। এখানকার ব্যাংকিং খাত মূলত তাদের পাঠানো রেমিটেন্সে উপর নির্ভর করে এগিয়েছে। তিনি আরো জানান, বিয়ানীবাজারে ব্যাংকগুলোর রিজার্ভই ব্যাংকিং খাতকে উৎসাহিত করে এখানে নতুন শাখা খোলার। বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর চোখ রয়েছে বিয়ানীবাজারের উপর।  


 

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার