• বুধবার   ০৩ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ১৮ ১৪২৭

  • || ১৯ রজব ১৪৪২

সর্বশেষ:
বাংলাদেশ এখন মালয়েশিয়ার কাতারে মৌলভীবাজারে শুরু হলো বইমেলা, এসেছে নতুন বই জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৭ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৫১৫  সিলেটে করোনার টিকা গ্রহণ, যে কারণে পিছিয়ে নারীরা মাহবুব তালুকদার ইসিকে অপদস্ত করার জন্য সবই করছেন: সিইসি ঢাবিতে পতাকা উত্তোলন দিবস পালন হবিগঞ্জে এক মাসে ২০টি মোটর সাইকেল চুরি

পূর্ণিমা ফিরছেন নতুন রূপে

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ২২ জানুয়ারি ২০২১  

এক সময় বছরে তিন-চারটি সিনেমা মুক্তি পেত চিত্রনায়িকা পূর্ণিমার। বড় বড় পরিচালকের সঙ্গে অনেক ব্যবসাসফল সিনেমায় কাজ করেছেন। পেয়েছেন সুপাারস্টারের খেতাব। সব সময় মানসম্মত কাজেই মন ছিল। মানহীন কাজের জোয়ারের সময়েও গা না ভাসিয়ে কাজ করেছেন সামাজিক ও ভাল মানের সিনেমায়। সেই পূর্ণিমাই হঠাৎ করে আড়ালে চলে যান। বলতে গেলে স্বেচ্ছা নির্বাসন। কয়েক বছর বিরতির পর অভিনয়ে ঠিকই ফেরেন, কিন্তু ফিরে আসার পর সিনেমায় তাকে পাওয়া যায়নি। বছরে দু-একটি নাটকে অভিনয় করতেন। তবে তার ইমেজ বরাবরই পছন্দ উদ্যোক্তাদের। তাই তো তাকে মাসের বড় একটি সময় ব্যস্ত থাকতে হয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ফটোশ্যুট, বিজ্ঞাপন কিংবা প্রচারণায়। কেন তাকে সিনেমায় পাওয়া যাচ্ছে না এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বরাবরই বলে আসছিলেন, ‘অনেক প্রস্তাব পাই। চাইলে এখনো আগের মতো সিনেমাতেই ব্যস্ত থাকতে পারি সারা বছর। কিন্তু এখন সময় বদলেছে। সঙ্গে বদলেছে দর্শকের রুচি। তার চেয়ে বড় কথা, শিল্পী হিসেবে আমার বয়স, অভিজ্ঞতা এমনকি কাজের ধরন নিয়ে চিন্তাও বদলেছে। তাই এখন সিনেমা করলে সেই সিনেমাই করব যাতে আমার অভিনয়প্রতিভা বিকাশের সুযোগ থাকে। আমার প্রতি  দর্শকের যে আকাশছোঁয়া প্রত্যাশা সেটা যেন নতুন কাজের মাধ্যমে একটুও ক্ষীণ না হয়।’

অবশেষে পূর্ণিমাকে ২০১৯ সালে নতুন দুটি সিনেমায় পরপর চুক্তিবদ্ধ হতে দেখা যায়। কিন্তু দুর্ভাগ্য, নানা কারণে সিনেমা দুটির নির্মাণকাজ ও মুক্তি নির্দিষ্ট সময়ে হয়নি। সম্প্রতি পূর্ণিমা ‘গাঙচিল’-এর কাজ করেছেন। ছবিটি পরিচালনা করছেন নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল। পূর্ণিমার বিপরীতে আছেন জনপ্রিয় অভিনেতা ফেরদৌস আহমেদ। এছাড়া তিনি অকালপ্রয়াত চিত্রনায়ক মান্নার স্ত্রী শেলী মান্নার প্রযোজনায় ‘জ্যাম’ নামে আরও একটি সিনেমা করছেন একই টিমের সঙ্গে। তবে পূর্ণিমা ভক্তদের জন্য সুখবর হলো নতুন বছর থেকে তার অভিনয় নিয়ে ব্যস্ততা বাড়ছে। এরইমধ্যে নতুন বছরে দুটি ভালো কাজের সঙ্গে নিজেকে যুক্ত করেছেন। মেধাবী নির্মাতা অমিতাভ রেজা প্রথমবারের মতো নির্মাণ করছেন সিরিজ ওয়েবফিল্ম। এর নাম ‘মুন্সিগিরি’। এতে চঞ্চল চৌধুরীর বিপরীতে থাকছেন পূর্ণিমা। আরও থাকবেন শবনম ফারিয়া। অমিতাভ রেজা বলেন, ‘কাজটি নিয়ে অনেক দিন থেকেই ভাবনা-চিন্তা ছিল। অবশেষে সেটি দর্শকের কাছে পৌঁছবে দেশি ওয়েব প্ল্যাটফর্ম চরকির মাধ্যমে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ফেব্রুয়ারি থেকে শ্যুটিং শুরু করব। কথাসাহিত্যিক শিবব্রত বর্মনের উপন্যাস ‘মৃতেরাও কথা বলে’ অবলম্বনে মুন্সিগিরির চিত্রনাট্য লিখেছেন নাসিফ আমিন। লেখক নিজেও চিত্রনাট্যের কাজে আমাদের সহায়তা করছেন। এটি যেহেতু একটি অ্যাডাপ্টেশন, তাই গল্পের শতভাগ হয়তো বইয়ের মতো থাকবে না। আমাদের ক্রিয়েটিভ স্বাধীনতা রয়েছে।’

চঞ্চলের বিপরীতে পূর্ণিমাকে নির্বাচন করা প্রসঙ্গে অমিতাভ রেজা বলেন, ‘পূর্ণিমা সম্পর্কে নতুন করে বলার কিছু নেই। তিনি আমার দেখা দেশের অন্যতম সেরা অভিনেত্রী। যেকোনো চরিত্রের সঙ্গেই তিনি মানিয়ে নিতে পারার ক্ষমতা রাখেন। আমার ফিল্মে যে চরিত্রে তিনি কাজ করবেন তাতেও তাকে চমৎকারভাবে মানিয়ে যাবে বলে আশা করছি। সঙ্গে এ-ও আশা করছি পূর্ণিমার অভিনয়ের নতুন দিক হয়তো দর্শক দেখবেন।’

‘মুন্সিগিরি’র গল্পে এক সরকারি কর্মকর্তার মৃত্যুরহস্যের তদন্ত করবেন পুলিশের  গোয়েন্দা মাসুদ মুন্সি অর্থাৎ চঞ্চল চৌধুরী। নিহত কর্মকর্তার স্ত্রী সুরাইয়ার চরিত্রে  দেখা যাবে পূর্ণিমাকে। এ নিয়ে রোমাঞ্চিত পূর্ণিমা বলেন, ‘এ রকম নতুন কিছুর জন্যই আমরা অধীর হয়ে বসে থাকি। সব সময়ই চেয়েছি জীবনে নতুন কিছুর যোগ হোক, মানুষ আমাকে নতুন রূপে দেখুক।’ রোমান্টিক নায়িকা থেকে গোয়েন্দা গল্পের অভিনেত্রী হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমার কাছে এ ধরনের গল্প আগে কখনো আসেনি। যখনই অমিতাভ ভাই গল্পটা বললেন, শুনে রাজি হয়ে গেলাম। গল্পে দুটি গুরুত্বপূর্ণ নারী চরিত্র আছে। আমার যেটি বেশি ইন্টারেস্টিং লেগেছে, সেটি বেছে নিয়েছি। আমাদের এখনো বেশ কিছু প্রস্তুতি বাকি। সিনেমা করতে গেলে অনেক সময় একই রকম লুক-গেটআপে করা যায়। এই কাজে সেটা হবে না। লুক টেস্ট, স্ক্রিন টেস্ট, রিহার্সাল অনেকগুলো প্রক্রিয়া পার হতে হবে। শ্যুটিংয়ের আগে রিহার্সালে সময় বেশি দিতে হবে। আমি আসলে একটা ভালো কাজ করতে চাই, ভালো অভিনয় করতে চাই, যেটা মানুষ মনে রাখবে।’ স্ট্রিমিং সাইটগুলোর দেশি-বিদেশি কিছু কনটেন্ট নিয়ে সহিংসতা, অশ্লীলতার অভিযোগ শোনা গেছে। এ প্রসঙ্গে আপনার ভাবনা কী? জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নির্ভর করছে, আমি কী চুজ করছি। ভালগারিজম বা খোলামেলা কিছু যদি থাকেও, সে রকম গল্প বেছে নেওয়া বা না নেওয়া আমার ওপর নির্ভর করে। নেগেটিভ, পজিটিভ আলোচনা মানুষ তৈরি করবেই। সিনেমা নিয়েও মানুষ সেসব করে। সিনেমায় কি ভালগারিজম ছিল না? আমরা কিন্তু ভালো সিনেমাগুলো করেই বেরিয়ে এসেছি।’

পূর্ণিমাকে ভালোবাসা দিবসের নাটকেও দেখা যাবে। দুই বছর আগে ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে সাগর জাহানের পরিচালনায় ‘ভালো বাসাবাসি’ নামে একটি নাটকে অভিনয় করেছিলেন পূর্ণিমা-তাহসান। আবারও একই নির্মাতার ‘এই পৃথিবী আমাদের’ নাটকে জুটি হয়েছেন তারা। পূর্ণিমা বলেন, ‘সাগর জাহানের পরিচালনায় কাজের অভিজ্ঞতা সবসময় অন্যরকম। আর তাহসানের সঙ্গে ‘ভালো বাসাবাসি’ নাটকটিতে দর্শকের কাছ থেকে দারুণ সাড়া পেয়েছিলাম। নতুন নাটকটির গল্পও অসাধারণ।’

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার