সোমবার   ২৬ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ১০ ১৪২৬   ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

সর্বশেষ:
শিগগিরই জাপানে জনশক্তি রফতানি করতে চুক্তি সই জামালপুরে নতুন ডিসি ৭৮৯ কোটি টাকার বাজেট পেলো নগরবাসী কাবিন থেকে ‘কুমারী’ শব্দ তুলে দেয়ার নির্দেশ মাত্র তিন দিনে ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট!
১০৬

পশুর হাট ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা বলয়

নিউজ ডেস্ক:

প্রকাশিত: ৭ আগস্ট ২০১৯  

আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে আজ থেকে রাজধানীর ২৪টি পশুর হাটে শুরু হয়েছে পশু বেঁচাকেনা। যা চলবে ঈদের আগের দিন (রোববার) পর্যন্ত। এসব হাটকে ঘিরে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এছাড়া অসুস্থ হয়ে গেলে পশু চিকিৎসার জন্য হাটে থাকছে ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম।

জানা গেছে, রাজধানীর দুই সিটি কর্পোরেশনে বসছে ২৩টি অস্থায়ী ও একটি স্থায়ী পশুরহাট। এরমধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে (ডিএনসিসি) রয়েছে ১০টি এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে (ডিএসসিসি) রয়েছে ১৪টি হাট।

রাজধানীর উত্তর সিটি কর্পোরেশনের যেসব স্থানে পশুর হাট বসছে সেগুলো হলো- উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টরের হাট, খিলক্ষেত বনরূপা হাট, খিলক্ষেত তিনশ ফুট সড়ক সংলগ্ন উত্তর পাশে, ভাটারা (সাঈদনগর) পশুর হাট, ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট খেলার মাঠ, মোহাম্মদপুর বুদ্ধিজীবী সড়ক সংলগ্ন (বছিলা) পুলিশ লাইনসের খালি জায়গা, মিরপুর সেকশন-৬ (ইস্টার্ন হাউজিং) খালি জায়গা হাট, মিরপুর ডিওএইচএসের উত্তর পাশের সেতু প্রপার্টি ও উত্তর খান মৈনারটেক শহিদনগর হাউজিংয়ের খালি জায়গার হাট।

অন্যদিকে, দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের যেসব স্থানে কোরবানির পশুর হাট বসছে সেগুলো হলো- আমুলিয়া মডেল টাউনের আশপাশের খালি যায়গা, উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজারের মৈত্রী সংঘের মাঠ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, ঝিগাতলা-হাজারীবাগ মাঠসংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, লালবাগ রহমতগঞ্জ খেলার মাঠ হাট, কামরাঙ্গীর চর ইসলাম চেয়াম্যান বাড়ি মোড়, পোস্তগোলা শ্মশানঘাট হাট, শ্যামপুর বালুর মাঠসহ আশপাশের খালি জায়গা।

এছাড়াও হাটের তালিকায় রয়েছে, মেরাদিয়া বাজার সংলগ্ন আশপাশ এলাকার খালি জায়গা, ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের সামসাবাদ মাঠ সংলগ্ন আশপাশ এলাকার খালি জায়গা, কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন বিশ্বরোডের আশপাশের খালি জায়গা, শনির আখড়া ও দনিয়া মাঠ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, ধূপখোলা ইস্ট অ্যন্ড খেলার মাঠ, ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউয়ারটেক মাঠ সংলগ্ন আশপাশ এলাকার খালি জায়গা ও আফতাবনগর ইস্টার্ন হাউজিং মেরাদিয়া বাজার।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের হিসাব মতে, এই ঈদে কমপক্ষে এক কোটি ১০ লাখ পশু কোরবানি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এর মধ্যে গরু-মহিষের সংখ্যা ৪৫ লাখ। বিশাল এই পশু বাণিজ্যকে কেন্দ্র করে জালনোট উৎপাদনকারী ও বিক্রির সিন্ডিকেট বিভিন্ন কৌশলে সক্রিয় হয়ে ওঠে। সেজন্য হাটে রয়েছে জালনোট শনাক্তকরণ মেশিন।

জানা গেছে, কোরবানির পশু বাণিজ্য ঘিরে জালনোটের ব্যবহার রোধ ও হাটের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বাংলাদেশ ব্যাংক ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বিশেষ নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এদিকে, পশুর হাটগুলোতে থাকছে সিসিটিভি ক্যামেরার ব্যবস্থা। এছাড়া হাটের নিরাপত্তার স্বার্থে থাকছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অস্থায়ী ক্যাম্প ও ওয়াচ টাওয়ার। পশুর হাটের নিরাপত্তায় এরই মধ্যে আশপাশের এলাকায় গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। হাটে হাসিলের চার্ট, প্রদেয় কর ও ট্যাক্সের তালিকা খোলা স্থানে ঝুলিয়ে রাখার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

এবার প্রতিটি পশুবাহী গাড়িতে নির্দিষ্ট হাটের নাম লেখা স্টিকার লাগানো থাকবে, কেউ ইচ্ছা করলে সেই হাট ছাড়া পশু নামাতে পারবে না। এই জন্য প্রতিটি হাটে স্বেচ্ছাসেবী কাজ করবে। এছাড়া পশুর ট্রাককে ঘিরে কেউ চাঁদাবাজি করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, পশুবাহী কোন পরিবহন থেকে চাঁদা আদায় রোধ করতে আগে থেকেই সতর্ক আছে পুলিশ। তারপরও কেউ যদি এ ধরনের অপরাধ করে তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। কেউ যদি চাঁদাবাজির শিকার হন তাহলে অভিযোগ করুন, তদন্ত করে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, এ ধরনের চাঁদাবাজির অভিযোগ অনেক পুরনো। সে কারণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর শীর্ষ কর্তাদের আগে থেকেই নির্দেশ দেয়া হয়েছে। রাজধানী কিংবা দেশের যেকোন এলাকায় পশুবাহী পরিবহনে যেন কোনভাবেই চাঁদাবাজি না হয় এ বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ব্যবসায়ীরা যেন তাদের পশু নির্বিঘ্নে হাটে নিয়ে যেতে পারেন সেজন্য থানা পুলিশের সঙ্গে হাইওয়ে পুলিশকেও বিশেষ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এদিকে, রাজধানীর প্রত্যেকটি পশুর হাটে থাকবে ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম। হাটে অথবা হাটে আনার সময় যদি কোনো গবাদিপশু অসুস্থ হয়ে পড়ে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দেবে এ টিম।

এ বিষয়ে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. হীরেশ রঞ্জন ভৌমিক বলেন, রাজধানীতে মোট ২৭টি ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম থাকবে। আর প্রতিটি মেডিকেল টিমে থাকবেন পাঁচজন সদস্য। তারা অসুস্থ হয়ে পড়া পশুকে চিকিৎসা দেবে।  এছাড়া পশুর স্বাস্থ্যের বিষয়ে মালিক চাইলে যে কোনো পরামর্শ দেবে ভেটেরিনারি মেডিকেল টিমের সদস্যরা।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর