শনিবার   ১৬ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬   ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
বিমানে আসবে পেঁয়াজ সড়কের কার্পেট তুলে অভিনব প্রতিবাদ আদালতের নির্দেশ অমান্য করে ভবন নির্মাণের অভিযোগ অর্ধকোটি টাকার গাছ কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা! বিয়ানীবাজার আ. লীগের নতুন নেতৃত্ব হবিগঞ্জে বেড়েই চলছে পেঁয়াজের দাম  
১৬৭

দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র: লন্ডন যাচ্ছেন মির্জা ফখরুল ও ড. কামাল

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬ অক্টোবর ২০১৯  

 


বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) রাত ১১টা ৫৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর গেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

জানা গেছে, চিকিৎসার আড়ালে সিঙ্গাপুর থেকে তিন দিনের সফরে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানের তলবে লন্ডন যাবেন মির্জা ফখরুল। সেখানে ২০২০ সালের পূর্বে বেগম জিয়ার মুক্তি, জোটের ভাঙন রোধে করণীয়, শিগগিরই সরকারবিরোধী আন্দোলন জোরদার করার বিষয়ে তারেক রহমানের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করবেন তিনি। একাধিক গোপন সূত্রের বরাতে ফখরুলের গোপন লন্ডন সফরের বিষয়টি জানা গেছে।

এদিকে সূত্র বলছে, সরকারবিরোধী রাজনৈতিক ঐক্য, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেনও লন্ডন যাচ্ছেন। মূলত তারেক রহমান ও মির্জা ফখরুলের সঙ্গে দেশি-বিদেশি চাপের মুখে পড়া বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের রাজনীতিতে গতি ফিরিয়ে আনতে লন্ডনে জরুরি বৈঠক করতেই লন্ডন যাচ্ছেন ড. কামাল হোসেন।

বেগম জিয়ার মুক্তি আন্দোলন, জোটের ভাঙন রোধ, ক্যাসিনো ব্যবসায় তারেক রহমানের নামসহ একাধিক ইস্যুতে বিভক্তি স্পষ্ট হয়েছে দলে। কোনোভাবেই কর্মীদের মাঠে নামাতে পারছে না দল। তাই বিদেশি ও দাতাদের চাপ সামাল দিতে এ বছরের নভেম্বরের পর আন্দোলনের কথা বলেছে বিএনপি। দল এভাবে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চললে আগামীতে রাজনীতি করা কষ্টকর হয়ে পড়বে বিএনপির জন্য। এছাড়া কিছু কুচক্রী মহলের কারণে ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দল নিয়ে চাপের মধ্যে রয়েছে বিএনপি। সব মিলিয়ে বিএনপির রাজনীতিতে ব্যাকফুটে চলে যাওয়ার অবস্থা। তাই সকল ধরণের বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে নতুন পরিকল্পনা শেয়ার করতে সিঙ্গাপুর থেকে তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করতে লন্ডনে যাবেন মির্জা ফখরুল এবং সেখানে তাদের সঙ্গে যোগ দিবেন ড. কামাল হোসেন।

এ বিষয়ে গণফোরামের নির্বাহী অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, সাধারণের মানুষের মধ্যে গুঞ্জন রয়েছে- ঐক্যফ্রন্ট নাকি সরকারবিরোধী কোনো কাজে লিপ্ত হতে লন্ডন যাচ্ছেন, আসলে বিষয়টি এমন নয়। তিনি লন্ডনে যাচ্ছেন জামাতা ডেভিড বার্গম্যানের সঙ্গে দেখা করতে। সময় পেলে তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করবেন। বিএনপির রাজনীতিতে স্থবিরতা সৃষ্টি হয়েছে, বিএনপি কোনো রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে আসতে পারছে না। তাই বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দ ও ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পরামর্শকদের অনুরোধে লন্ডনে হয়তো তারেক রহমানকে বিএনপি থেকে সাময়িকভাবে সরে যাওয়ার অনুরোধ করতে পারেন। জানতে পেরেছি, মির্জা ফখরুল সাহেবও লন্ডনে যাবেন তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করতে। সুতরাং ফখরুল সাহেবকে নিয়েই ত্রিমুখী বৈঠকে বসে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের ভবিষ্যৎ নির্ধারণী সিদ্ধান্তে আসতে পারাই এই সফরের মূল উদ্দেশ্য।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর