• রোববার   ১৮ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ৫ ১৪২৮

  • || ০৫ রমজান ১৪৪২

সর্বশেষ:
শ্রীমঙ্গলে কঠোরভাবে লকডাউন কার্যকর করতে পুলিশের চেকপোস্ট করোনা: সিলেটে ২৪ ঘন্টায় ২ জনের মৃত্যু করোনা: স্থান সঙ্কুলান হচ্ছে না শামসুদ্দিন হাসপাতালে করোনায় এক দিনে আবারও শতাধিক মৃত্যু জগন্নাথপুরে বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় প্রেমিকের আত্মহত্যা! বনানীর কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলো কবরী

কুশিয়ারার পাড় ধ্বংস করে বিক্রি হচ্ছে বালি ও মাটি

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ৪ মার্চ ২০২১  

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার কুশিয়ারা নদীর বুকে জেগে ওঠা চরের বালি ও মাটি অবাধে বিক্রি করে নদীর পাড় ধ্বংস করে পরিবেশের বিপর্যয় ঘটিয়ে অবৈধ পন্থায় লাখ লাখ টাকার অবৈধ বাণিজ্য করছে ভূমিদস্যুরা। আর এর প্রধান হোতা হিসেবে স্থানীয় মানিকোনা এলাকার ফরিদের নাম ছড়িয়ে পড়েছে মুখে মুখে। প্রশাসনের নাকের ডগায় অবাধে দিনে ও রাতে বিক্রি হচ্ছে এসব বালি ও মাটি। ভূমিদস্যুরা ক্ষমতাশালী হওয়ায় তাদের ভয়ে কেউ মুখ খুলছেন না। এতে স্থানীয় প্রভাবশালীরা জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে সম্প্রতি ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার মানিকোনা বাজার খেয়াঘাটে গেলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসী  জানান, আশ্বিন মাস থেকে নদীর পানি কমতে থাকে, জাগতে থাকে নদীর চর। পানি যত কমে, চর তত ভেসে ওঠে।

কুশিয়ারা নদীর তীরে গিয়ে দেখা যায়, নদীর বুকজুড়ে বিশাল চর জেগে উঠেছে। বৃষ্টি না হওয়ায় ছোট হয়ে এসেছে নদী, জেগেছে বিশাল চর। আর সেই সূযোগ কাজে লাগিয়ে কার্তিক মাস থেকে অবাধে বালি ও মাটি বিক্রি করে চলেছে ভূমিদস্যুরা। আগে রাতে নৌকা দিয়ে বেশি বালি ও মাটি চালান করা হতো। এখন গাড়িতে বেশি হয় এবং তা চলে ভোর রাত থেকে দুপুর পর্যন্ত। শুধু চর নয়, কুশিয়ারা নদীর দুই পাড় অবাধে কেটে কেউ কেউ সেই মাটি ইটভাটায় ব্যবহার করছেন বলেও জানান স্থানীয়রা। তাদের অভিযোগ, উজানের চরে বালি-মাটি বিক্রি হচ্ছে আর প্রশাসন নীরব ভূমিকা পালন করছে।

দেখা যায়, নদীর পাড় ঘেঁষে কাটা হচ্ছে মাটি আর নিচে অবাধে চলছে বালি বিক্রি। আগে বেশিরভাগ বালি-মাটি নৌকায় করে বিক্রি হতো। এখন পানি তলানিতে থাকায় নৌকায় কম বিক্রি হচ্ছে এবং ট্রলি ও পিকআপে বেশি বিক্রি হচ্ছে বলে স্থানীয়রা জানান। তবে প্রভাবশালীরা এর সঙ্গে জড়িত থাকায় ভয়ে তারা কারও নাম বলতে রাজি হননি।

ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মৌসুমী মান্নান বলেন, 'এ বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি এইমাত্র জানলাম। আমি এখনই লোক পাঠাচ্ছি। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'
 

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার