• বৃহস্পতিবার   ০৬ মে ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২৩ ১৪২৮

  • || ২৩ রমজান ১৪৪২

সর্বশেষ:
এবারও বিদেশিদের হজ বন্ধ রাখবে সৌদি আরব! করোনায় এক দিনে মৃত্যু ৫০, শনাক্ত ১৭৪২ একসঙ্গে ৯ সন্তানের জন্ম থাকতে হবে কর্মস্থলে, জেলার গাড়ি জেলাতেই চলবে যা আছে প্রজ্ঞাপনে রায়হান হত্যা: আকবরসহ ৬ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট হবিগঞ্জে ৫০ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার শ্রীমঙ্গলে দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত

কুলাউড়ায় শ্মশানের মাটি কেটে জোরপূর্বক রাস্তা মেরামতের অভিযোগ

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০২১  

কুলাউড়া উপজেলার বরমচালে একটি শ্মশানের জায়গা থেকে মাটি কেটে রাস্তা মেরামতের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সরকার ঘোষিত চলতি লকডাউনের আগে ১৩ এপ্রিল ভুক্তভোগী সনাতনী ধর্মালম্বীদের পক্ষে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভানু দেব নামে এক স্থানীয়।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, বরমচাল ইউনিয়নের নন্দনগর (টিকরা) এলাকায় ভৈরব থলীর শ্মশান অবস্থিত। ওই শ্মশানে দীর্ঘ কয়েক বছর যাবৎ মৃত সনাতন ধর্মালম্বীদের সৎকার করে আসছেন। শ্মশানের পাশ দিয়ে একটি পানি যাওয়ার ছড়া ছিলো। ওই ছড়া ভরাট হয়ে রাস্তায় পরিনত হয়েছে। রাস্তাটিতে চলাচলের সুবিধার জন্য ভানু দেব এর ব্যক্তিগত সম্পত্তি হতে কিছু অংশ রাস্তায় সংযুক্ত করেন। সম্প্রতি এই রাস্তা সংস্কারের নামে শ্মশান এর ভূমির অংশে অবস্থিত একটি একটি শিমুল গাছ কেটে ফেলেন স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহানুর রহমান সাদন। এর পাশে ভৈরব গাছ নামে পরিচিত গাছটি কেটে ফেলতে তিনি উদ্ধত হলে স্থানীয় সনাতনী ধর্মালম্বীরা এসে বাধা দেয়। ইউপি সদস্য বাধা উপেক্ষা করে গাছ কাটার ব্যাপাওে অনঢ় অবস্থান নেয়ায় কোন উপায় না দেখে ইউএনও বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন তারা।

স্থানীয় ভানু দেব বলেন, পূর্ব পুরুষ থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত আমরা শ্মশানে পূজা পার্বণ ও মৃতদের সৎকার কাজ করে আসছি। বর্তমানে ইউপি সদস্য সাদন জোরপূর্বক শ্মশানের জায়গা দখল করে রাস্থা নির্মানের পাঁয়তারা করছেন। আমরা ইউএনও বরাবর অভিযোগ দিয়েছি। সঠিকভাবে তদন্ত করলে আমাদের শ্মশানের জায়গা দখল থেকে বাঁচানো করা সম্ভব হবে।

অভিযোগ অস্বীকার করে ইউপি সদস্য শাহানুর রহমান সাদন বলেন, শিমুল গাছটি রাস্তার অংশে ছিলো। চেয়ারম্যান (খোরশেদ আলম খান সুইট) সাহেবের উপস্থিতিতে গাছটি সরানো হয়। ভানু দেব স্বয়ং গাছটি নামাতে সহযোগিতা করেন। ভৈরব গাছ কাটা কিংবা শ্মশানের জায়গা রাস্তায় আনার কোন প্রশ্নই আসে না। বুঝতে পারছি না কেন উনারা আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনলেন। তবে তদন্ত করলে সঠিক বিষয়টি উঠে আসবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা এ টি এম ফরহাদ চৌধুরী বলেন, অভিযোগের ব্যাপারে বরমচালের চেয়ারম্যান সাহেবকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর বিহিত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার