সোমবার   ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯   পৌষ ২ ১৪২৬   ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১

সর্বশেষ:
জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা সুনামগঞ্জে বাণিজ্য মেলার প্রবেশ টিকেট নিয়ে লটারি ব্যবসা! শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতে মানুষের ঢল বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা বিজয় দিবসের জন্য ইউএনওর ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি
৬৭

আমদানি-রপ্তানি হচ্ছে না জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশনে

সিলেট (জকিগঞ্জ) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

প্রায় নয় মাস ধরে জকিগঞ্জে স্থল শুল্ক স্টেশন বন্ধ রয়েছে আমদানি-রফতানি। গত জানুয়ারি মাস থেকে এ শুল্ক স্টেশনে আমদানী-রফতানি কার্যক্রম বন্ধ হয়ে পড়ে। এতে স্থবির হয়ে পড়েছে স্টেশনটি। কর্মহীন হয়ে পড়েছেন  শতাধিক শ্রমিক। আর মোটা অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার।

১৯৪৭ সালে জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশনটির কার্যক্রম শুরু হয়। সাত দশকের পুরনো এ স্টেশন দিয়ে কমলা, মুলিবাঁশ, টমেটো, পান, আদা, সাতকরা, আঙ্গুর, আপেল, চিটাগুড়, মশারী, সুটকি, আলু, মরিচসহ অন্যান্য কাচামাল আমদানী-রপ্তানি হয়ে আসছে। চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে সবধরনের পণ্য আমদানী-রপ্তানি বন্ধ রয়েছে। 

এ স্টেশন থেকে সরকার প্রতি বছর গড়ে ৩০-৩৫ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করতো। কিন্তু চলতি বছর এ পর্যন্ত রাজস্ব আয় হয়েছে প্রায় দেড় কোটি টাকা। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কাস্টম ঘাটটি জনমানবশূন্য। এ স্টেশনে দিয়ে গড়ে প্রতিদিন ৩০-৩৫ জন পর্যটক আসা-যাওয়া ছাড়া মানুষের তেমন আনাগোনা নেই । কর্মকর্তারা অলসভাবে সময় কাটাচ্ছেন।
 
শ্রমিক নজরুল ইসলাম, আব্দুল হান্নান আব্দুর রাজ্জাক, আবুল হোসেন জানান, মালামাল আমদানী-রপ্তানি না হওয়ায় আমরা এখন বেকার এবং খেয়ে না খেয়ে জীবনযাপন করছি। আশায় আশায় বসে আছি কিন্তু কখন যে কাজ শুরু হবে তা জানি না। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র জানায়, খরচ বেশি হওয়ার কারণ দেখিয়ে জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশন দিয়ে পণ্য আমদানি-রপ্তানি বন্ধ রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। 

জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশনের রাজস্ব কর্মকর্তা শিপন কুমার দাস জানান, আইনী কোনো জটিলতা নেই। ব্যবসায়ীরা আসছেন না তাই গত জানুয়ারি মাস থেকে এ স্টেশনে আমদানি-রপ্তানি প্রায় বন্ধ রয়েছে। সীমান্ত খোলা রয়েছে স্টেশনের অফিসও খোলা আছে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার