• শনিবার   ০৬ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২২ ১৪২৭

  • || ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
শামসুদ্দিন হাসপাতালে দুটি ভেন্টিলেটর দিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী শনিবার বন্ধ থাকবে শাবির করোনা পরীক্ষার ল্যাব  শাবির ল্যাবে আরও ২২ জনের করোনা শনাক্ত করোনা: আরও সাড়ে ৯ হাজার টন চাল, সোয়া ৬ কোটি টাকা বরাদ্দ কিছু মানুষ কখনও করোনায় আক্রান্ত হবে না: গবেষণা জাতিসংঘ পুরস্কার পেয়েছে ভূমি মন্ত্রণালয় করোনায় মৃত্যু ৮০০ ও শনাক্ত ৬০ হাজার ছাড়ালো সিলেটে নর্থ ইষ্ট মেডিকেলে ৪ দিনে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৮ জনের মৃত্যু সিলেটে প্রতিদিনই ভাঙছে রেকর্ড, একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত ৬০ বিশ্ব পরিবেশ দিবস আজ ‘করোনা প্রমাণ করেছে দুর্যোগ মোকাবিলায় আমরা কতটা শক্তিহীন’
৬৭

আপনার চাকরি সুরক্ষিত নাকি অনিশ্চিত! বুঝে নিন এই উপায়ে

সিলেট সমাচার

প্রকাশিত: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

 

প্রাইভেট সেক্টরে চাকরিজীবি অধিকাংশ মানুষই নিজের চাকরি নিয়ে অনিশ্চয়তায় ভোগেন। চাকরি থাকা না থাকা নিয়ে এই ভাবনায় অনেকেই দুশ্চিন্তায় থাকেন। কিন্তু জানেন কি, চাকরি থাকবে নাকি থাকবে না সেটা আগে ভাগে জানা সম্ভব।


তবে তার জন্য কয়েকটা দিকে লক্ষ্য রাখা জরুরি। চাকরিতে অনিশ্চয়তা তৈরি হয় কিছু কারণের জন্য। সেই কারণগুলোই আপনাকে বুঝতে সাহায্য করবে চাকরি থাকবে নাকি থাকবে না। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক কারণগুলো-


বেতন বেশি হলে ঝুঁকিও বেশি

সংস্থার বা দেশের আর্থিক অবস্থা খারাপ হলে প্রতিষ্ঠান খরচ কমানোর কথা ভাবতে শুরু করে। তখনই কর্মী ছাঁটাই হয়। অর্থাৎ বেতন-ভাতা সংক্রান্ত খরচ কমানোর পথ বেছে নেয় প্রতিষ্ঠান।


পরিস্থিতি এমন হলে যে কোনো প্রতিষ্ঠানের বেশি বেতনভোগী কর্মীরাই বাড়তি ঝুঁকিতে থাকেন। কারণ একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার যা বেতন তাই দিয়ে একাধিক কর্মীকে বেতন দেয়া সম্ভব। তাছাড়া একাধিক কর্মীর তুলনায় একজনকে ছাঁটাই করার ঝামেলাও কম।


দলে বেশি সদস্য

একাধিক বিভাগ নিয়ে গঠিত হয় একটি প্রতিষ্ঠান। যেকোনো বড় প্রতিষ্ঠানে একটি বিভাগের আওতায় একাধিক কর্মী দল থাকে। এমনই কোনো বিভাগের কর্মী দলে যদি প্রয়োজনের তুলনায় বেশি লোক থাকে তা হলে সেই দল থেকে ছাঁটাইয়ের ঝুঁকি বাড়ে।


খরচ বাঁচাতে পুরো দল বা বিভাগ বন্ধ করতে চায় না কোনো প্রতিষ্ঠান। ফলে দলের সদস্য সংখ্যা কমানোর কথা ভাবতে শুরু করে প্রতিষ্ঠান। কোনো বড় দল যদি প্রত্যাশা মতো ফল দিতে না পারে তা হলে সেখান থেকে কর্মী ছাঁটাইয়ের সম্ভাবনাও বাড়ে।


আউটসোর্সিং

যেকোনো প্রতিষ্ঠান চায় খরচ কমাতে। অফিসের এমন কোনো কাজ যেটা করার জন্য সংশ্লিষ্ট লোক রাখা হয়েছে, সেটি বাইরে থেকে কম খরচে করা গেলে প্রতিষ্ঠান সেই দিকে আগ্রহী হয়। এই পদ্ধতিকেই বলা হয় আউটসোর্সিং।


এই পদ্ধতিতে কাজ করালে আর্থিক দিক থেকে সাশ্রয় তো হয়ই, বেশ কিছু বাড়তি সুবিধাও পায় প্রতিষ্ঠান। অফিসে আপনি যে কাজটা করেন সেটা যদি আউটসোর্সিং-এর যোগ্য হয় তা হলে আপনার চাকরি হারানোর ঝুঁকি রয়েছে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার
লাইফস্টাইল বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর