বৃহস্পতিবার   ১৭ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ১ ১৪২৬   ১৭ সফর ১৪৪১

সর্বশেষ:
অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে অ্যাকশনে পুলিশ সিলেটে ছিনতাই করে ঢাকায় পালিয়ে গিয়েও রক্ষা হলনা কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’র উদ্বোধন আজ সড়ক ব্যবহারে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

আন্দোলনকারীদের দাবি অযৌক্তিক হওয়ায় পদত্যাগ করবেন না জাবি ভিসি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১ অক্টোবর ২০১৯  

অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। আজ মঙ্গলবারের মধ্যে স্বেচ্ছায় পদত্যাগের আল্টিমেটাম দেয়া হলেও উপাচার্য পদত্যাগ করবেন না বলে জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান। তিনি বলেন, বিচার-বিভাগীয় তদন্তের যে দায়িত্ব আমাকে আন্দোলনকারীরা দিয়েছে, সেটি অযৌক্তিক। আমি নিজের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে বা চাইতে পারি না। এটি সরকার অথবা বিচার বিভাগ চিন্তা করবে। এখানে অযৌক্তিক দাবি নিয়ে আমাকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগে আহ্বান করা হচ্ছে।

অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, যেহেতু তাদের দাবিতে যুক্তি নেই। তাই পদত্যাগে আমি ইচ্ছা প্রকাশ করছি না। বিচারিক প্রক্রিয়ায় আমি যেতে পারি না। আমি আন্দোলনকারীদের আইনি বিশেষজ্ঞের মতামত জানিয়েছি। এছাড়া ইউজিসি, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। আমার পক্ষে তো এটিই করা সম্ভব। তদন্তের বিষয়ে ইউজিসি কোন চিঠি দেয়নি বলেও জানান তিনি।

দুর্নীতির তদন্ত ও বিচার প্রসঙ্গে উপাচার্য বলেন, আচার্যের কাছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে খবর যাবে। যদি তারা মনে করে তদন্ত করা উচিত, তাহলে অবশ্যই তারা করবে। সেক্ষেত্রে আমার দিক থেকে যতটুকু সহযোগিতা করা সম্ভব আমি করবো।

এদিকে গত ১৮ সেপ্টেম্বর আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনায় উপাচার্যের বিরুদ্ধে ওঠা দুর্নীতির অভিযোগকে উপাচার্যের ব্যক্তিগত বিষয় বলে জানিয়ে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক আমির হোসেন অনুপস্থিত ছিলেন।

উপ-উপাচার্যের এমন বক্তব্যের বিষয়ে অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, তাহলে তিনি এতদিন কেন প্রো-ভিসি ছিলেন? এখনো বা আছেন কেন? উনার তো স্বেচ্ছায় চলে যাওয়া উচিত।

এদিকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পদত্যাগ না করায় কাল থেকে দুইদিনের সর্বাত্মক ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার উপাচার্যের প্রতি লাল কার্ড প্রদর্শন কর্মসূচি শেষে বুধ ও বৃহস্পতিবার সর্বাত্মক ধর্মঘটের ঘোষণা দেন আন্দোলনের মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন। তবে বিভাগগুলোর চূড়ান্ত পরীক্ষা এই ধর্মঘটের আওতার বাইরে থাকবে।

অন্যদিকে দুর্নীতির অভিযোগকে মিথ্যা আখ্যা দিয়ে পাল্টা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে উপাচার্যপন্থী শিক্ষকরা।

মঙ্গলবার উপাচার্যপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’ প্রেরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আগামীকাল বুধবার মানববন্ধন ও বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী জনসংযোগ কর্মসূচির কথা জানানো হয়েছে।

সিলেট সমাচার
সিলেট সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর